নয়া দিল্লি: সম্প্রতি শাওমির Mi 11 Lite স্মার্টফোনটিকে বিশ্ববাজারে প্রকাশ করা হয়েছে। আর এরপরে প্রশ্ন উঠতে শুরু করে ফোনটির ভারতে প্রকাশ নিয়ে। সংস্থার তরফে খুব শীঘ্রই ফোনটিকে ভারতে লঞ্চ করা হবে বলে জানান হয়।

তবে সেইক্ষেত্রে শুধুমাত্র 4G মডেলটি ভারতে লঞ্চ করা হবে বলে উল্লেখ করে সংস্থা। আর সেই কথা মতো আগামী ২২ জুন ভারতে প্রকাশ করা হতে চলেছে শাওমির Mi 11 Lite স্মার্টফোনটি। আসন্ন ফোনটি ভারতীয় গ্রাহকরা পাবে জনপ্রিয় ই-কমার্স সাইট ফ্লিপকার্টে। এই অনলাইন উপলভ্যতার বিষয়টি ই-কামার্স সাইটের উৎসর্গীকৃত পৃষ্ঠা নিশ্চিত করেছে।

শাওমি (Xiaomi) চলতি সপ্তাহের শুরুতেই ভারতে তাদের Mi 11 Lite ফোনটি লঞ্চের বিষয় ঘোষণা করেছিল। সংস্থার তরফে জনানো হয়েছিল ২২ জুন ভারতে ফোনটিকে লঞ্চ করা হবে। আর সেই মতো ফ্লিপকার্টে একটি লাইভ পৃষ্ঠাও চালু করা হয়েছে। তবে ই-কমার্স সাইটে দামের বিষয়টি উল্লেখ করা হয়নি।

সম্প্রতি Mi 11 Lite ফোনটি ইউরোপীয় বাজারে প্রকাশ করা হয়েছে। সেখানে এই ফোনের দাম রাখা হয়েছে EUR 299। ভারতে এই দামের হিসাব করলে যা দাঁড়ায় প্রায় ২৬,৬০০ টাকা। দুটি স্টোরেজের বিকল্পে ফোনটিকে প্রকাশ করা হয়েছে।

ইউরোপীয় গ্রাহকদের দেওয়া হয়েছে 6GB + 64GB এবং 6GB + 128GB স্টোরেজের পরিষেবা। আশাকরা হচ্ছে Mi 11 Lite ফোনটির ইউরোপীয় বাজারের থেকে ভারতের বাজারে খানিকটা কম দাম রাখা হতে পারে।

ভারতের বাজারে শাওমির আসন্ন Mi 11 Lite এর বৈশিষ্ট্যগুলি বিশ্ববাজারের মতো একই রাখা হতে পারে বলে আশাকরা হচ্ছে। সেই হিসেবে এই ফোনে থাকতে পারে ৬.৫৫ ইঞ্চি full-HD+ (1080 x 2400 pixels) ডিসপ্লের সঙ্গে একটি ৯০ হার্জ রিফ্রেস রেটের সুবিধা। পাশাপাশি Qualcomm Snapdragon 732G SoC দ্বারা চালনা করা হতে পারে, যাতে যুক্ত থাকবে একটি 8GB LPDDR4X RAM এবং 128GB UFS 2.2 স্টোরেজ পরিষেবা।

ক্যামেরার জন্য শাওমির ফোনে রাখা হতে পারে একটি triple rear ক্যামেরা সেটআপের ব্যবস্থা। এই সেটাআপে যুক্ত থাকতে পারে একটি 64MP primary সেন্সার, একটি 8MP ultra-wide-angle লেন্স এবং একটি 5MP সেন্সার।

সেলফি এবং ভিডিও কলের জন্য গ্রাহকদের দেওয়া হতে পারে একটি 16MP সেলফি শুটারের সঙ্গে একটি f/2.45 অ্যাপার্চারের পরিষেবাও। এছাড়া Mi 11 Lite স্মার্টফোনে 4,250 mAh ক্ষমতার একটি ব্যাটারি থাকবে, যা ৩৩ ওয়াট দ্রুত চার্জিং সমর্থন করে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.