কলকাতা: কেকেআর কি নতুন নেতার হাত ধরে ত্রয়োদশ আইপিএলে নামছে? কখন শুভমন গিলকে নেতা ঘোষণা করা হবে? শাহরুখ খানে টুইটার হ্যান্ডেলে এমনই প্রশ্ন ছুঁড়ে দিয়েছিলেন এক নাইট ভক্ত৷ উত্তর দিলেন কিং খান নিজে৷

মার্চের শেষে শুরু হচ্ছে আইপিএল-এর ত্রয়োদশ সংস্করণ৷ সব দলগুলিই শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতিতে ব্যস্ত। টিম নিয়ে কাটাছেঁড়া চলছে। কেকেআর ফ্যানেরাও দলের বিষয়ে জানতে উসুক৷ এক নাইট ভক্ত সরাসরি জিজ্ঞেস করেন, কখন কেকেআর শুভমন গিলকে ক্যাপ্টেন ঘোষণা করবে? এ হেন প্রশ্নে বিব্রত না-হয়ে স্বভাবসিদ্ধ ঢংয়ে জবাব দিলেন কেকেআর মালিক শাহরুখ খান৷ কিং খানে টুইটারেই লেখেন, ‘যখন আপনাকে দলের হেড কোচ ঘোষণা করা হবে।’

এ নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় হাসির ফোয়ারা চলে৷ শাহরুখ ও নাইট ভক্তের এই প্রশ্ন-উত্তর শেয়ার করে কেকেআর৷ পাশাপাশি ছবির ক্যাপশনে লেখা, ‘দারুণ জবাব’। সঙ্গে দেওয়া হয়েছে ব্রেন্ডন ম্যাকালামের ছবিও। যাঁকে ত্রয়োদশ আইপিএলে নাইটদের প্রধান কোচ হিসেবে দেখা যাবে৷ জাক ক্যালিসের উত্তরসূরি হিসেবে এবার কেকআর কোচের জার্সি গায়ে মাঠে নামতে চলেছেন প্রাক্তন এই নাইট ওপেনার৷ প্রথম আইপিএল তথা আইপিএল-এর ইতিহাসের প্রথম ম্যাচে সেঞ্চুরি করে ভারতীয় ক্রিকেটের মিলিয়ন ডলার বেবি-কে এক ধাক্কা অনেক উঁচুতে পৌঁছে দিয়েছিলেন ম্যাকালাম৷

সম্প্রতি ব্যাট হাতে দারুণ ফর্মে রয়েছেন গিল৷ নিউজিল্যান্ডে ভারতীয়-এ দলের জার্সিতে দারুণ ব্যাটিং করছেন ভারতীয় ক্রিকেটের এই তরুণ তুর্কি৷ তবে কেকেআর-এর তরফে আগেই জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল এবার নেতা বদলের কোনও সম্ভাবনা নেই৷ অর্থাৎ দীনেশ কার্তিকেই আস্থা রাখছে কেকেআর থিঙ্কট্যাঙ্ক৷

আইপিএল নিলামের সময় কেকেআর-এর প্রধান কোচ ম্যাকালাম জানিয়েছিলেন, ‘দীনেশই আমাদের ক্যাপ্টেন৷ নেতৃত্বে আমরা অভিজ্ঞতাতে গুরুত্ব দিচ্ছি৷ ইয়ন মর্গ্যানের মতো অভিজ্ঞ ক্রিকেটার দলে রয়েছে৷’ মর্গ্যানের নেতৃত্বে প্রথমবার ওয়ান ডে বিশ্বকাপ জয়ের স্বাদ পেয়েছে ইংল্যান্ড৷ অতীতেও মর্গ্যান নাইটদের হয়ে খেলেছেন৷ এবারের নিলামেও তাঁকে ফের দলে নেয় কেকেআর৷

তবে শুরুতে নেতা বদল না-করলেও মর্গ্যান দলে থাকায় এবার বেশ কিছুটা চাপে থাকবেন কার্তিক৷ কারণ আইপিএলের ইতিহাসে টুর্নামেন্টের মাঝে নেতা বদলের ঝুড়ি ঝুড়ি প্রমাণ রয়েছে৷ মর্গ্যানের পাশাপাশি এবার বিশ্বের এক নম্বর টেস্ট বোলার প্যাট কামিন্সকে রেকর্ড দামে কিনেছে কেকেআর৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।