নয়াদিল্লি: বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় ফ্রি মেসেজিং অ্যাপ হচ্ছে, হোয়াটস অ্যাপ। ৯০০ মিলিয়ন মানুষ এই অ্যাপটি ব্যবহার করেন। কিন্তু হোয়াটসঅ্যাপ আদৌ কি সুরক্ষিত? এমনই প্রশ্ন তুলেছে মাত্র ১৮ বছর বয়সী ইন্দ্রজিত ভূইয়া নামের এক গবেষক। ভারতীয় এই তরুণ সাইবার নিরাপত্তা গবেষক। তিনি জানান, হোয়াটসঅ্যাপ আদৌ পুরোপুরি সুরক্ষিত নয়। এতে একটি বাগ রয়েছে, যার ফলে ইমোজি ব্যবহার করে সহজেই যে কোনো হোয়াটসঅ্যাপ অ্যাকাউন্ট মুহূতেই ক্র্যাশ করে দেওয়া সম্ভব। 

ইমো ব্যবহার করে যে কারো হোয়াটসঅ্যাপ অ্যকাউন্ট ক্র্যাশ করে দেওয়ার বিষয়টি সম্প্রতি ডেইলি মেইল, মিররসহ বিভিন্ন আন্তজার্তিক সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। ইন্দ্রজিত জানান, হোয়াটসঅ্যাপে কাউকে মেসেজের সঙ্গে ৬০০০ ইমো পাঠালে মুহূর্তেই তার হোয়াটসঅ্যাপ অ্যাকাউন্ট ক্র্যাশ করবে। হোয়াটসঅ্যাপের ডেস্কটপ ভার্সনে একসঙ্গে ৬৬০০ ক্যারেক্টার পর্যন্ত লেখা যায়। কিন্তু দেখা যায় ডেস্কটপ ভার্সনে হোয়াটসঅ্যাপে ৪২০০-৪৪০০ পর্যন্ত ইমো দেওয়ার পরই ব্রাউজার ধীরগতির হয়ে পড়ে।

আর এই বিশাল পরিমান ইমো সমৃদ্ধ ‘ইমো বোমাটি’ মোবাইলে কোনো হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারকারীর কাছে পাঠিয়ে দিয়ে মুহূর্তেই তার হোয়াটসঅ্যাপ অ্যাকাউন্ট ক্র্যাশ করানো যাবে। এই বাগের বিষয়টি হোয়াটসঅ্যাপ কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছেন ইন্দ্রজিত ভূইয়া এবং হোয়াটসঅ্যাপ কর্তৃপক্ষ হয়তো তাদের পরবর্তী ভার্সনে এর সমাধান করবে বলেও জানিয়েছেন।