নয়াদিল্লি: ফের রেকর্ড ভেঙে নতুন রেকর্ড তৈরি করল দেশ। করোনা সংক্রমিতের সংখ্যা প্রায় ৩ লক্ষ হতে চলল। একাধিক উদ্যোগ নিয়েও কোনও ভাবেেই রাশ টানা যাচ্ছে না সংক্রমণে। রাজ্য গুলিতে লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়েই চলেছে সংক্রমণ। সংক্রমণে রাশ টানতে নাইট কার্ফু ও উইকএন্ড লকডাউন সহ একাধিক পদক্ষেপ নিয়েছে রাজ্যগুলি। কিন্তু তাতেও লাভের কিছুই হচ্ছে না। উলটে বেড়েছে মৃত্যুর সংখ্যাও।

দেশের এই টালমাটাল অবস্থায় অনেকেই ভ্যাক্সিন গ্রহণ করেছেন। আবার করোনার টিকা গ্রহণ নিয়ে দ্বিমতও রয়েছে অনেকের। তবে সবকিছু পিছনে ফেলে সারা দেশে শুরু হয়ে গিয়েছে করোনার টিকাকরণ। কিন্তু সে প্রক্রিয়া নিয়ে মনের মধ্যে এখনও অজস্র প্রশ্নের ভিড়- টিকা কতটা কার্যকরী হবে, কোনও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হবে কি না ইত্যাদি। প্রথম ডোজ নেওয়ার পর কোনও রকম শারীরিক প্রতিক্রিয়া দেখা দিতেই পারে। তাই টিকা নেওয়ার পর প্রথম কয়েকদিন খাদ্যাভ্যাসেও বেশ কিছু নিয়ন্ত্রণ কিংবা সংযোজন রাখা জরুরি।

শুধু তাই নয়, যেভাবে করোনা বাড়ছে তাতে ভ্যাক্সিন নেওয়ার পরও কতটা নিয়ে সুরক্ষিত থাকা যাবে তা হলফ করে বলা মুশকিল। তবে ভ্যাক্সিন নেওয়ার শরীরে যাতে কোনও রকম সমস্যা তৈরি না হয় এবং ইমিউনিটি পাওয়ার যাতে ভালো থাকে তার জন্য যেমন একজন বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নেওয়া বাঞ্চনীয় তেমনই টিকা নেওয়ার পরের কয়েক দিন খাদ্যতালিকায় রাখা উচিত পুষ্টিকর সুষম খাবার।

খেয়াল রাখবেন এই সময় আপনার ডায়েট চার্টে যেন, প্রোটিন, ভিটামিন, ক্যালশিয়াম, কার্বোহাইড্রেট এবং মিনারেল জাতীয় জিনিস থাকে।

তাহলে আসুন জেনে নিই করোনার টিকা দেওয়ার পর খাদ্যতালিকায় কোন কোন খাবার রাখা জরুরি…

১. টিকা নেওয়ার পর যেহেতু শরীরটা দূর্বল লাগে তাই এই সময় প্রচুর পরিমাণে জলপান করা উচিত ।

২.রোজ অন্তত আধ ঘন্টা হাঁটুন।

৩.হলুদ, তুলসি পাতা, মধু, আখরোট, আমন্ড ইত্যাদি ডায়েট চার্টে রাখুন।

৩.রোজ ৮ ঘণ্টা ঘুম জরুরি।

৪.কার্বহাইড্রেটের পরিমাণ কম রাখুন ও মরশুমি ফল আর শাক-সবজি বেশি করে খান।

৫.যাদের কিডনির অসুখ (সিকেডি) আছে, প্রোটিন, জল, পটাশিয়াম মেপে খান। ফল ও শাক-সবজি ডায়াটেশিয়ানের পরামর্শ মেনে খান।

৬. ইমিউনিটি বাড়ানোর জন‌্য চিকিৎসকের পরামর্শ মতো সাপ্লিমেন্ট খেতে হবে।

৭.এছাড়াও লাঞ্চে রাখুন সবুজ শাকপাতা।

৮. এই সময় চেষ্টা করুন সকালে এক গ্লাস গরমজল খাবার।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.