সুশান্ত মণ্ডল, কলকাতা: যুবভারতীতে উড়ল ব্রিটিশ পতাকা! এক ঐতিহাসিক ম্যাচের সাক্ষী থাকল কলকাতা৷ ‘স্প্যানিশ আর্মাডা’ গুড়িয়ে অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপ ফুটবল ফাইনালে ‘ব্রিটিশরাজ’৷ সেই সঙ্গে ইউরো কাপ ফাইনালের মুধুর প্রতিশোধ ব্রিউস্টার-ফডেনদের৷ শনিবার রাতে যুবভারতীয় বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ছেলের মায়ের চোখেও আনন্দের অশ্রু!

আরও পড়ুন: জুয়েলদের হৃদয়ে ইংল্যান্ড, রিটার্ন গিফট পেল যুবভারতী

ছেলেকে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হিসেবে দেখে কী অনুভূতি ফাইনালের নায়ক ফিল ফডেনের মা ক্লারা’র! মাস পাঁচেক আগে ইউরো কাপ ফাইনালে এই স্পেনের কাছে টাই-ব্রেকারে হেরে কেঁদে ছিলেন ফডেনরা৷ ছেলেকে কাঁদতে দেখে সেদিন চোখের জল বাগ মানেনি ক্লারা ফডেনেরও৷ এদিনও চোখে জল৷ তবে তা আনন্দের৷ ট্রফি হাতে ছেলেকে উচ্ছ্বসিত হতে দেখে দ্রুত স্টেডিয়াম থেকে বেড়িয়ে যুবভারতীয় ভিআইপি গেটের বাইরে এসে বান্ধবীকে নিয়ে নিজেও উচ্ছ্বাসে মাতলেন চল্লিশোর্ধ্ব ক্লারা৷

আরও পড়ুন: ফুটবল মক্কায় বিশ্বকাপ: চার্নকের কলকাতায় ব্রিটিশ সিংহের গর্জন

ম্যাঞ্চেস্টারে থাকা ফিলের বাবার সঙ্গে ছেলের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হওয়ার স্বাদ ভাগ করে নিলেন ফোনে৷ স্বামীর সঙ্গে ফোনে কথা বলা শেষ করে কলকাতা ২৪X৭-এর সঙ্গে কথা বললেন ক্লারা৷ বাঁধনছাড়া উচ্ছ্বাসের সঙ্গে বান্ধবীকে পাশে নিয়ে ক্লারা জানান, ‘আজ স্বপ্নটা সত্যি হল৷ পাঁচ মাস আগে ইউরো কাপ ফাইনাল হেরে ছেলেকে কাঁদতে দেখে ভীষণ কষ্ট হয়েছিল৷ আজ ছেলের হাতে বিশ্বকাপটা দেখে ভীষণ আনন্দ হচ্ছে৷’ এক নিঃশ্বাসে কথাগুলো বলে চলেছিলেন বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ছেলের গর্বিত মা৷

মাত্র তিন বছর বয়সে ছেলের ফুটবল প্রেম প্রথম লক্ষ্য করেছিলেন মা ক্লারা ফডেন৷ মায়ের হাত ধরেই ছ’ বছর বয়সে ম্যাঞ্চেস্টার সিটির ফুটবল অ্যাকাডেমির ট্রায়ালে গিয়েছিলেন ছোট্টো ফডেন৷ তার পর ধীরে ধীরে নিজের জাত চিনিয়েছেন৷ দেশের জার্সিতে ইউরো কাপ ফাইনালের পর বিশ্বকাপ ফাইনালে নিজের প্রতিভার পরিচয় দিলেন ইংল্যান্ড অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপ জয়ী দলের এই  মিডিও৷ ফাইনালে দু’টি গোল করে ম্যাচের নায়কের মা ক্লারা, ছেলের পারফরম্যান্সে গর্বিত৷ তিনি বলেন, ‘ছেলের জন্য গর্ব অনুভব হচ্ছে৷ ভবিষ্যতে ছেলেকে ম্যাঞ্চেস্টার সিটি এবং দেশের জার্সিতে সিনিয়র বিশ্বকাপে দেখতে চাই৷’

আরও পড়ুন: বিশ্বকাপ জিতে পেলের ব্রাজিলকে ছুঁল ফডেন-ব্রিউস্টাররা

কিন্তু গ্যালারিতে বসে ছেলেদের প্রথমে ২ গোলে পিছিয়ে পড়তে দেখে কী মনে হয়েছিল ক্লারা’র৷ ‘কিছুটা হতাশ হয়েছিলাম৷ ভেবেছিলাম আজও ছেলেকে কাঁদতে দেখতে হবে৷ কিন্তু না, আজ আমার ছেলে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন! ইউরো কাপ ফাইনালে হারের মুধুর প্রতিশোধ নিল ফিল-ব্রিউস্টাররা৷’ এ কথা শোনার পর আনন্দে নেচে উঠলেন ক্লারা’র বান্ধবী৷

আরও পড়ুন:যুব বিশ্বকাপের দর্শক সংখ্যায় চিনকে পিছনে ফেলল ভারত

১৯৬৬-তে তৎকালীন পশ্চিম জার্মানিকে হারিয়ে সিনিয়র ফুটবল বিশ্বকাপ জিতেছিল ইংল্যান্ড৷ আর ২০১৭-তে অনূর্ধ্ব-২০ এবং অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপ ফুটবলে চ্যাম্পিয়নের স্বাদ পেলেন ইংরেজরা৷ স্বভাবতই বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাস ইংল্যান্ড সমর্থকদের৷ সব শেষে যুবভারতীর রোমাঞ্চ ও তিলোত্তমা আতিথেয়তায় মুগ্ধ ক্লারা বললেন, ‘আমি কলকাতাকে ভালোবাসি৷’