মুম্বই: অস্ট্রেলিয়া সফরে বর্ণবিদ্বেষের ঘটনা কিছুতেই মন থেকে মুছে ফেলতে পারছেন না ভারতীয় ক্রিকেটাররা৷ দেশে ফিরে সিডনি টেস্টের বর্ণবৈষম্য নিয়ে মুখ খুললেন টিম ইন্ডিয়ার স্ট্যান্ড-ইন ক্যাপ্টেন অজিঙ্ক রাহানে৷

বর্ণবৈষম্যমূলক মন্তব্যের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়ে মাঠে ছাড়তে রাজি হননি ভারতীয় ক্রিকেটাররা৷ উলটে অভিযুক্ত দর্শকদের মাঠ থেকে বের করে দেওয়ার আর্জি জানিয়ে ছিল ভারতীয় দল৷ ঘটনার সুত্রপাত, সিডনি টেস্টের তৃতীয় দিন মহম্মদ সিরাজের উদ্দেশে দর্শকাসন থেকে বর্ণবিদ্বেষী মন্তব্য৷ ঘটনা প্রথমে আম্পায়ারকে জানান ভারত অধিনায়ক অজিঙ্ক রাহানে৷

টেস্টের তৃতীয় দিন অস্ট্রেলিয়ার দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিংয়ের সময় বাউন্ডারির ধারে ফিল্ডিং করেছিলেন টিম ইন্ডিয়ার পেসার সিরাজ৷ দশর্কাসন থেকে বেশ কিছু মত্ত দর্শক ভারতীয় পেসারের বিরুদ্ধে বর্ণবৈষম্যমূলক মন্তব্য করেন৷ ঘটনার পরই ক্যাপ্টেন রাহানে-সহ দলের বেশ কয়েকজন সিনিয়র ক্রিকেটার বিষয়টি দুই ফিল্ড আম্পায়ার পল উইলসন ও পল রাইফেলের কাছে অভিযোগ জানান৷

ভারতীয় ক্রিকেটারদের কাছ থেকে অভিযোগ পেয়ে অভিযুক্ত ছয় দর্শককে মাঠ থেকে বের করে দেন নিরাপত্তারক্ষীরা৷ কিন্তু কী ঘটেছিল সেদিন ? এ প্রসঙ্গে রাহানে বলেন, ‘সিডনিতে যা ঘটেছিল, তা অত্যন্ত দু:খের৷ সিরাজ ও অন্য কয়েকজনের সঙ্গে যা ঘটেছিল সেটা মেনে নেওয়া যায় না৷ তাই আমরা আমাদের সিদ্ধান্তে অনড় ছিলাম৷ আম্পায়াররা মাঠ ছাড়তে বললেও আমরা তা করিনি৷ আম্পায়ারদের আমরা বলেছিলাম, আমরা এখানে খেলতে এসেছি৷’

এ প্রসঙ্গে ভারতের স্ট্যান্ড-ইন ক্যাপ্টেন আরও বলেন, ‘একই সঙ্গে আমরা খেলোয়াড়দের সম্মান দিতে চেয়েছিলাম৷ আমরা বলেছিলাম, অভিযুক্ত দর্শকদের মাঠ থেকে বের করে দিলে আমরা খেলা শুরু করতে পারি৷’ সিডনি টেস্টের চতুর্থ দিনও দর্শকাসন থেকে ফের সিরাজকে কটুক্তি করা হয়েছিল৷

বর্ণবৈষম্যের তিক্ত অভিজ্ঞতার কথা বর্ণনা করেছেন এসসিজি-তে উপস্থিত ভারতীয় বংশোদ্ভূত এক দর্শক৷ কৃষ্ণ কুমার নামে ওই ভারতীয় দর্শক এক ওয়েবসাইটে জানিয়েছেন, সিডনি টেস্টের দ্বিতীয়, তৃতীয় এবং পঞ্চম দিন তিনি খেলা দেখতে গিয়েছিলেন। দ্বিতীয় এবং তৃতীয় দিনে বর্ণবিদ্বেষের ঘটনা দেখার পর পঞ্চম দিনে তিনি চারটি ব্যানার নিয়ে মাঠে গিয়েছিলাম, যাতে বর্ণবিদ্বেষের নিন্দা করা হয়েছিল। ব্যানারে তিনি লিখেছিলেন, ‘ক্রিকেটে লড়াই ভালো। কিন্তু বর্ণবিদ্বেষ কাম্য নয়। দয়া করে বর্ণবিদ্বেষমূলক মন্তব্য বন্ধ করুন।’

কিন্তু তারপর কী হয়েছিল? কৃষ্ণ কুমার বলেন, ‘এক নিরাপত্তারক্ষী এসে আমাকে মাঠ ছেড়ে চলে যেতে বলেন। যদি তোমাকে এত প্রতিবাদ জানাতে হয়, তাহলে যেখান থেকে এসেছো, সেখানেই ফিরে যাও।’ এরপরেই ওই নিরাপত্তারক্ষী তাঁর জুনিয়রদের নির্দেশ দেন কৃষ্ণকে তল্লাশি করার।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।