কলকাতা : পশ্চিমী ঝঞ্ঝার প্রভাব পড়ছে কলকাতার আবহাওয়ার উপরে। তবে এর জের কিছুটা ভালো বা মন্দের ভালো বলা যেতে পারে, কারণ তাপমাত্রা যা বেশ কিছুদিন ধরে স্বাভাবিকের অন্তত তিন থেকে চার ডিগ্রি বেশি থাকছিল তা কমেছে। এমনটাই দেখা যাচ্ছে হাওয়া অফিসের তথ্যে।

আজ মঙ্গলবার কলকাতার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২৩.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা স্বাভাবিকের থেকে দুই ডিগ্রি বেশি। সম্প্রতি তা ২৫ ডিগ্রিতেও পৌঁছে গিয়েছিল। অর্থাৎ স্বাভাবিকের থেকে তা প্রায় চার ডিগ্রি বেশি হয়ে গিয়েছিল। এবার সাত সকালে যদি ২১ ডিগ্রির স্বাভাবিক পারদ যদি ২৫ দিয়ে শুরু হয় স্বাভাবিকভাবেই সকাল থেকেই অস্বস্তি শুরু হয়ে যাচ্ছিল। আজ তা হয়নি। গতকাল থেকেই তা বোঝা গিয়েছে। দুপুরের গরম কিছুটা কম ছিল। সোমবার শহরের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৩.৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা স্বাভাবিকের থেকে এক ডিগ্রি বেশি। গত ৪৮ ঘণ্টায় তা ৩৫ থেকে ৩৬ ডিগ্রি পৌঁছে গিয়েছিল। তা কমেছে গত ২৪ ঘণ্টায়। সন্ধ্যা থেকে ঠাণ্ডা হাওয়ায় শহরের আবহাওয়াকে স্বস্তি দিয়েছে তা বলা যেতেই পারে। তবে আজ মঙ্গলবার দুপুরে ফের শহরের পারদ ৩৫ ছুঁতে পারে বলে জানাচ্ছে হাওয়া অফিস।

শহরের আপেক্ষিক আর্দ্রতার পরিমান সর্বোচ্চ ৯৩ শতাংশ, সর্বনিম্ন ৩৯ শতাংশ। অনেকটা লম্বা ফারাক থাকায় সকালে কিছুটা স্বস্তিদায়ক আবহাওয়া, দুপুরে তা মানুষকে কাহিল করবে। আগামী ২৪ ঘণ্টায় ফের বাড়বে সর্বনিম্ন তাপমাত্রাও, পৌঁছতে পারে ফের পঁচিশের ঘরে। ফলে ঝঞ্ঝা সাময়িক স্বস্তির আবহাওয়া দিলেও তা শীঘ্রই পরিবর্তন হবে বলে জানাচ্ছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর।

এদিকে উত্তর পশ্চিম ভারতের বেশিরভাগ অংশে আজ মঙ্গলবার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা দুই থেকে তিন ডিগ্রি পর্যন্ত কমতে পারে। সৌজন্যে সেই পশ্চিমী ঝঞ্ঝা। এই ঝঞ্ঝা উত্তরে শীতকে বাড়ায়, পূর্ব ভারতে শীত কমায়। শীত চলে গেলে এই ঝঞ্ঝাই আবার আবহাওয়ার উপর অন্যরকম প্রভাব ফেলে ঠাণ্ডার বদলে তা বৃষ্টির আকার নেয়। কেন্দ্রীয় আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে আগামী দিন তিনেক দেশের ওই অংশের আবহাওয়ার তেমন কোনও বড় কোনও পরিবর্তন হবে না। সবে মার্চ মাস তাই এখনই কোথাও তাপপ্রবাহের সম্ভাবনাও নেই। পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন স্থানে কুয়াশা দেখা দিতে পারে ঝঞ্ঝার প্রভাবে। যা হচ্ছেও। কলকাতার সকালের আকাশ হালকা কুয়াশাছন্ন। ওডিশা এবং সিকিমেও কুয়াশা থাকতে পারে বলে জানাচ্ছে হাওয়া অফিস। আবহাওয়ার পূর্বাভাসে এও বলে দেওয়া হয়েছে যে, ১৩ মার্চ পর্যন্ত বৃষ্টি হতে পারে পশ্চিম হিমালয়ের বিভিন্ন পার্বত্য অঞ্চলে। সঙ্গে হতে পারে তুষারপাতও। ১৩ মার্চ রাতে আবার একটি পশ্চিমী ঝঞ্ঝা হানা দিতে পারে। এর প্রভাব পড়বে উত্তর পূর্ব ভারতের বিভিন্ন অংশে। বিক্ষিপ্ত বৃষ্টি হতে পারে বলে জানাচ্ছে মৌসম ভবন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.