কলকাতাঃ  শক্তি পাকিয়ে ধেয়ে আসছে ভয়ঙ্কর ঘুর্ণিঝড়। আরব সাগরে একটি গভীর নিম্নচাপ তৈরি হয়েছিল। যার জেরে গত কয়েকদিন ধরেই ঝড় বৃষ্টির পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে। এই অবস্থায় অশনি সঙ্কেত শোনাল মৌসম ভবন। গভীর নিম্নচাপটি ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হওয়ার পূর্বাভাস দিলেন আবহাওয়াবিদরা। নয়া এই সাইক্লোনের নাম দেওয়া হয়েছে কিয়ার।

পড়ুন আরও- ধেয়ে আসছে ভয়ঙ্কর ঘুর্ণিঝড়, Red Alert জারি করল সরকার

এর প্রভাবে কোঙ্কণ অঞ্চল, গোয়া, কর্নাটকের উপকূলীয় এলাকায় ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টির সতর্কতা জারি হয়েছে। প্রবল ঝড়ো হাওয়াও বইতে পারে বলে জানানো হয়েছে। তবে এই ঘুর্ণিঝড়ের কোনও প্রভাব পড়বে না বাংলার উপর, এমনটাই জানা যাচ্ছে। তবে এখনই বৃষ্টির হাত থেকে রেহাই পাচ্ছে না বাংলার মানুষ।

শুক্রবার দফায় দফায় বৃষ্টি হয়েছে কলকাতা সহ গোটা দক্ষিণবঙ্গে। বৃষ্টি হয়েছে উত্তরবঙ্গের জেলাগুলিতেও। দফায় দফায় ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টি হয়েছে। তবে এই অবস্থায় কিছুটা হলেও স্বস্তির খবর শোনাচ্ছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর। কালীপুজোর দিন অর্থাত্ রবিবার মেঘ-বৃষ্টি সরে গিয়ে দেখা দিতে পারে ঝলমলে রোদ। রবিবার রোদের দেখা মিললেও শনিবারও বৃষ্টি হতে পারে বলে পূর্বাভাস দিয়ে রেখেছে আলিপুর হাওয়া অফিস।

পড়ুন আরও- ধেয়ে আসছে ভয়ঙ্কর ঘুর্ণিঝড়, জারি করা হল চূড়ান্ত সতর্কতা

বিশেষ করে উত্তর এবং দক্ষিণ ২৪ পরগণাতে বৃষ্টি হতে পারে। হালকা বৃষ্টি হতে পারে কলতাকাতা-সহ অন্যান্য জেলাতেও। অন্যদিকে অতি ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস রয়েছে মালদহ ও দুই দিনাজপুরে। তবে ক্রমশ ঝাড়খন্ডের দিকে সরছে পশ্চিম মধ্য বঙ্গোপসাগরের নিম্নচাপ। নিম্নচাপের প্রভাবে দক্ষিণবঙ্গের জেলাগুলিতে ঢুকেছে প্রচুর পরিমাণে জলীয় বাষ্প। যার কারণে এই বৃষ্টিপাত হতে পারে। ফলে এদিনও বৃষ্টির হাত থেকে রেহাই না পাওয়ারই সম্ভাবনা।

অন্যদিকে গত ২৪ ঘন্টায় যেভাবে বৃষ্টি হয়েছে তাতে এক ধাক্কায় অনেকটাই কমেছে তাপমাত্রা। তবে এখনই শীত পড়ার কোনও সম্ভাবনা নেই বলেই জানাচ্ছে আলিপুর হাওয়া অফিস। আবহাওয়াবিদদের মতে, নিম্নচাপটি পাকাপাকি সরে গেলে চড়া রোদ উঠবে। তখন আবার কিছুটা গরম বাড়বে বলেই পূর্বাভাস।