কলকাতা: সাইক্লোন বুলবুলের ব্যাপক প্রভাব পড়তে চলেছে বাংলায়। ইতিমধ্যেই ঢুকে পড়েছে সেই ঘূর্ণিঝড়। এই মুহূর্তে পরিস্থিতি ঠিক কীরকম, তা জানাতেই সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

শনিবার রাতে নবান্ন থেকে তিনি জানান, বঙ্গোপসাগরে একটি ক্রজ যাচ্ছিল। তাতে ৭০ জন যাত্রী ছিলেন। ঝড়ের গতিপথের সঠিক খবর তাদের কাছে ছিল না। ফলে, মাঝসমুদ্রে বিপাকে পড়ে যায় তারা। রাজ্য সরকারের মোতায়েন করা উদ্ধারকারী দল তাদের নিরাপদ আশ্রয়ে নিয়ে এসেছে। এটা রাজ্য সরকারের একটা বড় সাফল্য বলেই উল্লেখ করেন মমতা।

এদিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, এখনও পর্যন্ত রাজ্য মোট ১ লক্ষ ৬৪ হাজার ৩১৫ জনকে উদ্ধার করা হয়েছে। রিলিফ ক্যাম্প তৈরি করা হয়েছে ৩১৮টি। ১ লক্ষ ১২ হাজার ৩৬৫ জন রয়েছেন সেই ক্যাম্পে। এসডিআরএফ টিম রয়েছে ৬টি, এনডিআরএফ টিম থাকবে ১০টি। এছাড়া ৯৪টি নৌকা মোতায়েন করা হয়েছে।

ঝড় শেষে ড্রোন নামিয়ে সার্ভে করা হবে বলে জানিয়েছেন মমতা। ‘দুর্দান্ত’ নামে যে ড্রোন রাজ্য সরকারের কাছে আছে সেগুলি রবিবার সকালে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত এলাকাগুলির উপর ওড়ানো হবে। বেশ কিছু জায়গায় ঘর ভেঙেছে, জমিও নষ্ট হয়েছে। কন্টাই, রামনগর, খেঁজুরি, নন্দীগ্রাম বিশেষভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

নবান্নে খোলা হয়েছে কন্ট্রোল রুম। পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে নবান্নেই রয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। রাজ্যের প্রশাসনিক ভবনে খোলা কন্ট্রোল রুমেই এই মুহূর্তে রয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। সেখান থেকে বসেই গোটা পরিস্থিতির উপর তিনি নজর রাখবেন তিনি।

অন্যদিকে বন্ধ রাখা হচ্ছে কলকাতা বিমানবন্দর। শনিবার সন্ধে থেকে বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে অন্যতম ব্যস্ত এই বিমানবন্দর। জানা গিয়েছে শনিবার সন্ধে ৬টা থেকেই বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে এই বিমানবন্দর। সকাল ৬টা পর্যন্ত বিমান চলাচল বন্ধ রাখা হবে। এই সময়ের মধ্যে কোনও বিমান উড়বে না বা অবতরণ করবে না এই বিমানবন্দরে। উপকূল থেকে আর বেশি দূরে নেই বুলবুল। যে গতিতে ধেয়ে আসছে এই সাইক্লোন, তাতে ঘণ্টাখানেক লাগবে উপকূলে আছড়ে পড়তে।