কলকাতা: দেশের অন্যান্য অংশের পাশাপাশি নাগরিকত্ব আইন ও এনআরসি বিরোধী আন্দোলনে উত্তাল হয়েছিল উত্তরপ্রদেশ৷ যোগীরাজ্যের বিভিন্ন এলাকায় পথে নেমে কেন্দ্র-বিরোধী আন্দোলনে সামিল হন বহু মানুষ৷ লখনউ-সহ উত্তরপ্রদেশের একাধিক শহরে অশান্তির ঘটনায় গ্রেফতার হন বহু আন্দোলনকারী৷ ধৃতদের মধ্যে রয়েছেন মালদহের ৬ যুবক। এরাজ্যের ওই ৬ যুবকের পাশে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত রাজ্য সরকারের৷ ধৃতদের মুক্তির জন্য আইনজীবীও নিয়োগ করেছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার।

সিএএ ও এনআরসি নিয়ে আন্দোলনে উত্তাল হয় দেশের বিভিন্ন প্রান্ত৷ কেন্দ্র-বিরোধী আন্দোলনে সামিল হয় একাধিক রাজনৈতিক দল৷ একাধিক সংগঠনও কেন্দ্রীয় পদক্ষেপের বিরুদ্ধে পথে নেমে আন্দোলনে সামিল হয়৷ প্রবল বিক্ষোভ শুরু হয় যোগী রাজ্য উত্তরপ্রদেশেও। একাধিক এলাকায় পুলিশের সঙ্গেও বচসায় জড়িয়ে পড়েন আন্দোলনকারীরা৷ পুলিশকে লক্ষ্য করে পাথর ছোড়ারও অভিযোগ ওঠে আন্দোলনাকারীদের৷ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে লাঠিচার্জ করে পুলিশ৷ ফাটানো হয় কাঁদানে গ্যাসের শেলও৷ কেন্দ্র-বিরোধী আন্দোলনে উত্তরপ্রদেশে ২১ জনের মৃত্যু হয়৷ একাধিক শহরে অশান্তিতে যুক্ত থাকার অভিযোগে গ্রেফতার হন কয়েকশো আন্দোলনকারী৷

উত্তরপ্রদেশে অশান্তির ঘটনায় ধৃত কয়েকশো বিক্ষোভকারীর মধ্যে রয়ছেন এরাজ্যের মালদহ জেলার ৬ বাসিন্দা৷ স্বভাবতই ভিনরাজ্যে পরিজনেরা পুলিশএর হাতে ধরা পড়ায় ঘোর দুশ্চিন্তায় পড়েন এরাজ্যে থাকা ধৃতদের পরিবার৷ আর এবার রাজ্য সরকারই তাঁদের আইনি সহায়তা দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে৷ ধৃত ৬ জনের দ্রুত মুক্তির ব্যাপারে আইনি সহায়তা নেওয়া হবে৷ রাজ্য সরকারের তরফে আইনজীবীও নিয়োগ করা হয়েছে। ২ জানুয়ারি আদালত খুললেই এরাজ্যের ৬ জনের মুক্তির জন্য আবেদন জানানো হবে।

পশ্চিমবঙ্গ থেকে উত্তরপ্রদেশে কাজের খোঁজে গিয়েছিলেন ওই ৬ জন৷ ধৃতদের কেউ ১০ বছর কেউ বা ৫ বছর ধরে উত্তরপ্রদেশে কাজ করছেন৷ যোগীরাজ্যে নাগরিকত্ব আইন ও এনআরসি নিয়ে আন্দোলন শুরু হতেই তাঁরাও যোগ দেন সেই আন্দোলনে৷ পরে তাঁদের গ্রেফতার করে উত্তরপ্রদেশ পুলিশ৷ ধৃতদের পরিবারের অভিযোগ ধৃত ৬ জনের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়েছে পুলিশ৷