কলকাতা: হোলির দিনেই বাগানে এসেছে বসন্ত৷ তবে বাগানে বসন্তের আভাস পাওয়া গিয়েছিল দোলের দিনেই৷ ভূ-স্বর্গে রিয়াল কাশ্মীরকে পদ্মাপাড়ের ক্লাব হারাতেই গঙ্গাপাড়ের ক্লাবের ভারতসেরা হওয়া ত্বরাণিত হয়৷ রবিবার হোলিতে তা সম্পূর্ণ করে সবুজ-মেরুন৷ কল্যাণীতে আইজল-কে হারিয়ে দ্বিতীয়বার আইলিগ ট্রফি ঘরে তোলে মোহনবাগান৷

শতাব্দী প্রাচীন এই ক্লাবের হাত ধরে দ্বিতীয়বার আইলিগ এসেছে বাংলায়। চার ম্যাচ বাকি থাকতেই আইলিগ জিতে নিয়েছে মোহনবাগান৷ রবিবার বাগানের সামনে সম্মানরক্ষার ডার্বি৷ কিন্তু তার আগেই বাগান ফুটবলারদের সাফল্যকে কুর্নিশ জানাবে রাজ্য সরকার। শুক্রবার ভারতসেরা হওয়ার জন্য মোহনবাগানকে সংবর্ধনা দেবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার।

রবিবার বড় ম্যাচ। কিন্তু তাতে কী! বড় ম্যাচের দু’দিন আগেই অর্থাৎ ১৩ মার্চ, শুক্রবার নেতাজী ইনডোর স্টেডিয়ামে সবুজ-মেরুন ফুটবলারদের সংবর্ধনা জানাতে উপস্থিত থাকবেন স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আইলিগ ট্রফি হাতে পেতে দেরি থাকলেও ভারতসেরা ফুটবলারদের সংবর্ধনায় দেরি চান না রাজ্য সরকার৷

মোহনবাগান শেষবার আইলিগ জিতেছিল সঞ্জয় সেনের কোচিংয়ে৷ এবার অবশ্য বাগানে আইলিগ এসেছে স্প্যানিশ কোচের হাত ধরে৷ আইজলের বিরুদ্ধে মাঠে নামার আগে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার জন্য বাগানে দরকার ছিল পাঁচ ম্যাচে দু’পয়েন্ট। আইজলকে হারিয়ে তিন পয়েন্ট নিয়ে আইলিগে সিলমোহর দিল কিবুর ছেলেরা৷

সোমবার দোলের দিনেই বাগানে বসন্ত এসে গিয়েছিল৷ মাঠে উপস্থিত কর্তাদেরও মাখিয়ে দেওয়া হয়েছিল আবির৷ বাগানের স্প্যানিশ কোচ নিজে রং মাখেননি৷ মঙ্গলবার স্ট্যানলি রোজারিওর দলকে হারিয়ে বাগানের নৌকো পাল তোলে৷ ১৬ ম্যাচে ৩৯ পয়েন্টে নিয়ে অন্যদের ধরা ছোঁয়ার বাইরে চলে যায় মোহনবাগান৷ লিগে কাশ্মীর-সহ বাকি দশ দল সব ম্যাচ জিতলেও ছুঁতে পারবে না গঙ্গাপাড়ের ক্লাবকে৷

চার ম্যাচ বাকি থাকতে দলকে আই লিগ চ্যাম্পিয়ন সবুজ-মেরুনের স্বপ্নের সওদাগরের কিবু ভিকুনা৷ যা তাঁকে বসিয়ে দিয়েছে টিকে চাটুনি, সুব্রত ভট্টাচার্য, সঞ্জয় সেনদের সঙ্গে একাসনে। মিথ ভেঙে ময়দানের প্রথম বিদেশি কোচ হিসেবে মোহনবাগানকে ভারতসেরা করেছেন এই স্প্যানিয়ার্ড।

স্পেনের প্রথমসারির ক্লাব ওসাসুনার সহকারী কোচ, এছাড়াও স্পেন ও পোল্যান্ডের একাধিক ক্লাবে কোচিং’য়ের অভিজ্ঞতা দেখে ২০১৯ মে-তে কিবুকে কোচ করে আনেন বাগান কর্তারা। কিন্তু কলকাতাও লিগ আসেনি। গোকুলামের কাছে ফাইনাল হেরে ডুরান্ডে রানার্স হয় মোহনবাগান। রব উঠেছিল কিবুকে দিয়ে হবে না। কিন্তু আস্থা রেখেছিলেন বাগান কর্তারা। আর নিজের প্রতি আস্থা হারাননি কিবুও।

অতীতে করিম বেঞ্চেরিফা, ট্রেভর মর্গ্যান কিংবা হালফিলে আলেজান্দ্রো গার্সিয়া। বিদেশি কোচ হিসেবে ময়দানে দু’প্রধানের হয়ে আইলিগে রানার্স হওয়ার নজির রয়েছে অনেকের। কিন্তু অচলায়তনের সুভদ্র হয়ে উঠতে পারেননি এঁদের কেউ। যা পারলেন কিবু।

পাস, পাস আর পাস এই মন্ত্রেই দীক্ষিত হয়ে বাজিমাৎ করল এবারের মোহনবাগান। ২০০৯-১০ চার ম্যাচ বাকি থাকতে লিগ জিতেছিল আর্মান্দো কোলাসোর ডেম্পো। বিপক্ষের উপর ছড়ি ঘুরিয়ে ১০ বছর পর ডেম্পোর সেই নজির স্পর্শ করল কিবুর সাজানো বাগান।

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV