কলকাতা: বাংলায় লাগাম ছাড়া সংক্রমণ৷ দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা এই প্রথম চার হাজার ছাড়াল৷ অ্যাক্টিভ আক্রান্তেও নতুন রেকর্ড৷ গত ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু হয়েছে ৬১ জনের৷ এদিন আরও কমেছে সুস্থতার হার৷

মঙ্গলবার রাজ্য স্বাস্থ্য ভবন বুলেটিনের তথ্য অনুযায়ী, রাজ্যে একদিনে সর্বোচ্চ আক্রান্ত ৪,০২৯ জন৷ সোমবার ছিল ৩,৯৯২ জন৷ সব মিলিয়ে মোট আক্রান্ত ৩ লক্ষ ২৯ হাজার ৫৭ জন৷ গত ২৪ ঘন্টায় ৬১ জনের মৃত্যু হয়েছে৷ সোমবার ছিল ৬৩ জন৷ ফলে এই পর্যন্ত রাজ্যে মোট মৃতের সংখ্যা ৬,১৮০ জন৷

অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যাটা বাড়তে বাড়তে ৩৫ হাজার ছাড়াল৷ এদিনের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ৩৫ হাজার ১৭০ জন৷ সোমবার ছিল ৩৪ হাজার ৫৮৪ জন৷ তুলনামূলক ৫৮৬ জন বেশি৷ এক সময় অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যাটা কমতে কমতে ২৩ হাজারে নেমে এসেছিল৷

এদিনও নতুন আক্রান্তের তুলনায় সুস্থ হয়ে উঠার সংখ্যাটা কম৷ একদিনে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৩,৩৮২ জন৷ সোমবার ছিল ৩,২৭২ জন৷ এই পর্যন্ত সুস্থ হয়ে উঠেছেন ২ লক্ষ ৮৭ হাজার ৭০৭ জন৷ সুস্থতার হার কমে ৮৭.৪৩ শতাংশ৷ সোমবার ছিল ৮৭.৪৮ শতাংশ৷

একদিনে যে ৬১ জনের মৃত্যু হয়েছে তাদের মধ্যে কলকাতার ১৭ জন৷ উত্তর ২৪ পরগনার ১৩ জন৷ দক্ষিণ ২৪ পরগনার ৩ জন৷ হাওড়ার ৬ জন৷ হুগলি ২ জন৷ পশ্চিম মেদিনীপুর ২ জন৷ বাঁকুড়া ১ জন৷ বীরভূম ২ জন৷ নদিয়া ২ জন৷ মুর্শিদাবাদ ২ জন৷ মালদা ১ জন৷ দক্ষিণ দিনাজপুর ২ জন৷ উত্তর দিনাজপুর ২ জন৷ জলপাইগুড়ি ২ জন৷ দার্জিলিং ২ জন৷ কোচবিহার ২ জন৷

যদিও বাংলায় একদিনে ৪৩ হাজার ৭৬২ টি নমুনা টেস্ট হয়েছে৷ সোমবার ছিল ৪৩ হাজার ৬১৯ টি৷ এই মূহুর্তে মোট টেস্টের সংখ্যা ৪০ লক্ষ ৭৮ হাজার ৬৫১ টি৷ প্রতি ১০ লক্ষ জনসংখ্যায় টেস্টের সংখ্যা বেড়ে হল ৪৫,৩১৮ জন৷

এই মুহূর্তে সরকারি এবং বেসরকারি মিলিয়ে রাজ্যে ৯২ টি ল্যাবরেটরিতে করোনা টেস্ট হচ্ছে৷ আরও ২ টি ল্যাবরেটরি অপেক্ষায় রয়েছে৷ আশা করা যায় ওই ল্যাবরেটরিতে শীঘ্রই টেস্ট শুরু হবে৷

বাংলায় এই মূহুর্তে ৯৩ টি সরকারি এবং বেসরকারি হাসপাতালে আইসোলেশন শয্যা তৈরি করা হয়েছে৷ এর মধ্যে সরকারি ৩৮ টি হাসপাতাল ও ৫৫ টি বেসরকারি হাসপাতাল রয়েছে৷ হাসপাতালগুলিতে মোট কোভিড বেড রয়েছে ১২,৭৫১ টি৷ আইসিইউ শয্যা রয়েছে ১,২৪৩টি, ভেন্টিলেশন সুবিধা রয়েছে ৭৯০টি৷ কিন্তু সরকারি কোয়ারেন্টাইন সেন্টার রয়েছে ৫৮২টি৷

জেলবন্দি তথাকথিত অপরাধীদের আলোর জগতে ফিরিয়ে এনে নজির স্থাপন করেছেন। মুখোমুখি নৃত্যশিল্পী অলোকানন্দা রায়।