কলকাতা: বাংলায় করোনার সংক্রমণের গ্রাফ নিম্নমুখী। একদিনের নিরিখে রাজ্যে করোনায় কমল মৃত্যুও।সোমবার সন্ধ্যায় রাজ্য স্বাস্থ্য ভবনের বুলেটিনের তথ্য অনুযায়ী, গত একদিনে রাজ্যে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ১৬ জনের৷ রবিবার এই সংখ্যাটা ছিল ১৯৷ সব মিলিয়ে বাংলায় করোনায় মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৯ হাজার ৯৫৭।

একদিনে আক্রান্ত মাত্র ৬১২ জন৷ এর কারণ রাজ্যে গত ২৪ ঘন্টায় তুলনামূলক কম হয়েছে করোনা টেস্ট৷ তথ্য অনুযায়ী ২৩ হাজার ৩১৩ টি৷ আগেরদিন অর্থাৎ রবিবারও টেস্ট হয়েছিল ৩৫ হাজার ১২৩ টি৷ একদিনে ১০ হাজারের কম টেস্ট হয়েছে৷

একদিনে সংক্রমণের সংখ্যা কম হলেও বাংলায় মোট আক্রান্তের সংখ্যাটা বেড়ে ৫ লক্ষ ৬১ হাজার ৩২১ জন৷ আর এই পর্যন্ত বাংলায় করোনা নমুনা টেস্ট হয়েছে সাড়ে ৭৪ লক্ষের বেশি৷ তথ্য অনুযায়ী ৭৪ লক্ষ ৬৪ হাজার ৮১৩ টি৷ ফলে প্রতি ১০ লক্ষ জনসংখ্যায় টেস্টের সংখ্যা বেড়ে হল ৮২,৯৪২ জন৷

এই মুহূর্তে সরকারি এবং বেসরকারি মিলিয়ে রাজ্যে ১০০ টি ল্যাবরেটরিতে করোনা টেস্ট হচ্ছে৷ আরও ১ টি ল্যাবরেটরি অপেক্ষায় রয়েছে৷ তবুও চিন্তা বাড়াচ্ছে মৃত্যুহার৷ ১০ জানুয়ারির রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের তথ্য অনুযায়ী, বাংলায় মৃত্যুহার ১ দশমিক ৭৭ শতাংশ৷ তবে এই মূহুর্তে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন মাত্র ১,৯৩৮ জন৷ হোম আইসোলেশনে ৫,৮৭৮ জন৷ আর সেফ হোমে আছেন ৬৫ জন৷

স্বস্তির খবর,রাজ্যে একদিনে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৯৩৯ জন৷ রবিবার ছিল ৯৫৭ জন৷ শনিবার ছিল ৯৭৮ জন৷ সব মিলিয়ে রাজ্যে মোট সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৫ লক্ষ ৪৩ হাজার ৮২৬ জন৷ আর সুস্থতার হার বেড়ে ৯৬.৮৮ শতাংশ৷

অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যাটা কমে ৮ হাজারের নিচে৷ তথ্য অনুযায়ী,৭ হাজার ৫৩৮ জন৷ রবিবার ছিল ৭ হাজার ৮৮১ জন৷ তুলনামূলক ৩৪৩ জন কম৷

বি: দ্র: – প্রতিদিন সন্ধ্যায় রাজ্য স্বাস্থ্য ভবন থেকে যে বুলেটিন প্রকাশিত হয়,সেখানে আগের দিন সকাল ৯ টা থেকে বুলেটিন প্রকাশিত হওয়ার দিন সকাল ৯ টা পর্যন্ত তথ্য উল্লেখ করা হয়৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।