মুম্বই: লোকসভা ভোটের আগে জোট না হলে প্রাক্তন শরিকদের শেষ করে দেওয়া হবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন অমিত শাহ। তারই জবাবে শিব সেনা বিজেপিকে পুঁতে ফেলার হুমকি দিল।

শিব সেনা নেতা রামদাস কদম শাহের মন্তব্যের জবাবে এই হুমকি দেন। বর্তমানে কেন্দ্রে ও মহারাষ্ট্রে বিজেপির শরিক হিসেবেই রয়েছে শিবসেনা। কিন্তু ২০১৯-এ যে শরিক থাকার সম্ভাবনা নেই, সেই ইঙ্গিত আগেই দিয়েছে উদ্ধব ঠাকরের দল। এরপরই হুঁশিয়ারি দেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ।

রামদাস কদম মনে করিয়ে দেন ২০১৪-তে মোদী ঝড়ের মধ্যেও ৬৩টি আসন জিতেছিল শিব সেনা। তিনি বলেন, বিজেপি আগেই পাঁচটি রাজ্যে হেরেছে। বিজেপিকে সরাসরি বার্তা দিয়ে তিনি বলেন, “মহারাষ্ট্রে এসে আমাদের হুমকি দেওয়ার চেষ্টা করলেই পুঁতে ফেলব। “

রবিবার জোট নিয়ে শিবসেনাকে কড়া বার্তা দেন আমিত শাহ। প্রচ্ছন্ন হুমকির সুরে তিনি বলেন, বিজেপি শরিকদের জয় নিশ্চিত করবে কিন্তু জোটে না থাকলে শেষ করে দেবে বিজেপি।

ইতিমধ্যেই দিল্লির মহারাষ্ট্র সদনের এক মিটিং-এ বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ শিবসেনাদের সঙ্গে জোটের অপেক্ষা না করে মহারাষ্ট্রের এমপি-দের সমস্ত সিটে নির্বাচন লড়ার জন্য প্রস্তুত থাকতে বলেছেন।

বিজেপি সভাপতি সমস্ত এমপি-দের নিজ নিজ নির্বাচনক্ষেত্রে গিয়ে ভোটারদের সঙ্গে কথা বলার নির্দেশ দিয়েছেন। সিটবিভাজন থেকে জোট শরিকদের সঙ্গে বিজেপির ঔদ্ধত্যপূর্ণ ব্যবহার নিয়ে আগেই সরব হয়েছিল শিবসেনা৷ নতুন করে তাতে যোগ হয়েছে রাম মন্দির ইস্যূ৷ ১ জানুয়ারি সংবাদসংস্থাকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী স্পষ্ট জানিয়েছেন, আইনি প্রক্রিয়া শেষ না হলে রাম মন্দির নয়। মোদীর এই বক্তব্যের পর নিজেদের কট্টর হিন্দু দল হিসেবে তুলে ধরতে চাওয়া শিবসেনা বিজেপির বিরোধিতা শুরু করেছে৷

শিব সেনার তরফ থেকে বলা হয়েছে, বর্তমান বিজেপি সরকারের আমল যদি রাম মন্দির না হয়, তাহলে আর কবে হবে। তাদের দাবি, ২০১৯-এর লোকসভা নির্বাচনের আগে যদি রাম মন্দির তৈরি করা সম্ভব না হয় তাহলে সেটা জনগণের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করা হবে। এর জন্য মানুষের কাছে বিজেপি ও আরএসএস-কে ক্ষমা চাইতে হবে বলেও দাবি শিব সেনার।