বিশেষ প্রতিবেদন: বেড়াতে যেতে কার না ভালো লাগে! অবকাশ পেলেই মন ডানা মেলে উড়তে চায় সুদূরে। প্রতিটা দিনের কর্মক্লান্তি থেকে মন ও শরীর বিশ্রাম নিতে চায় স্বাভাবিক ভাবেই। তাই দু’দিনের ছুটি পেলেই অনেকে বেরিয়ে পড়েন প্রকৃতির টানে।

পর্যটনে আগ্রহীরা সারা বছর ধরেই ক্যালেন্ডারের দিকে তাকিয়ে থাকেন। হোক ছোট ট্যুর, তবু সুযোগ পেলেই বেরিয়ে পড়া চাই। বেড়াতে যেতে কার না ভাল লাগে! অফিসে দু’দিনের ছুটি পেলেই মন ডানা মেলে উড়তে চায় অচেনা দিগন্তের ক্যানভাসে। সুযোগ পেলেই অনেকে বেরিয়ে পড়েন প্রকৃতির টানে। উইকএন্ড কিংবা ছোট ছুটিতে প্রকৃতির বুকেই অবকাশের ঠিকানা খুঁজে নেন ভ্রমণরসিকরা।

বেড়াতে ভালবাসেন অথচ দার্জিলিঙে যাননি এখন মানুষ খুঁজে পাওয়া যাবে না। কিন্তু ক’জন জানেন দার্জিলিঙের কাছেই রয়েছে আরও এক সুন্দর ঠিকানা। শিয়ালদহ থেকে রাত ৮ টা বেজে ৩০ মিনিটের ১৩১৪৯ কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেসে উঠুন। পরদিন সকালে নিউ জলপাইগুড়ি। স্টেশনের বাইরে মিলবে ভাড়ার গাড়ি। ঘণ্টা চারেকের মধ্যেই পৌঁছে যান নিবিড় সবুজের ঠিকানায়।

যারা অফবিট ভ্রমণ ভালোবাসেন তাদের জন্য রংবুল হতে পারে সেরা ঠিকানা। এখানে বেড়াতে গেলে মনে আসে প্রশান্তি। দার্জিলিঙের ঘুম থেকে মাত্র পাঁচ কিলোমিটার দূরে ছোট্ট পাহাড়ি গ্রাম রংবুল। সারা বছরই এখানে পর্যটকরা বেড়াতে আসেন প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের টানে।

খুব অল্প সময়ে জায়গাটি হয়ে উঠেছে ভ্রমণ রসিকদের কাছে বিশেষ প্রিয়। এখন এখানে গড়ে উঠেছে নানা মানের থাকার জায়গা। হাতে সময় থাকলে ঘুরে আসুন অল্প দূরের লামাহাটা থেকে। অবকাশে জমিয়ে পাহাড়কে উপভোগ করুন। তাহলে আর সময় নষ্ট না করে আজই আপনার ট্যুর প্ল্যান করে ফেলুন!

পপ্রশ্ন অনেক: নবম পর্ব

Tree-bute: আমফানের তাণ্ডবের পর কলকাতা শহরে শতাধিক গাছ বাঁচাল যারা