ফাইল ছবি৷

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: শহরে শেষ পর্যন্ত হালকা ঝড়ো হাওয়া এবং বৃষ্টির পূর্বাভাস দিল আলিপুর আবহাওয়া দফতর। এতদিন সকালের পূর্বাভাসেও মিলছিল না বৃষ্টির কোনওরকম সম্ভাবনা। মেঘলা আকাশ , এ নিয়েই খান্ত থাকতে হয়েছে কলকাতাবাসীকে। আজ শনিবার হালকা বৃষ্টির সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে মহানগরের উপর।

শেষ কবে ভালো পরিমাণ বৃষ্টি হয়েছে কলকাতায় শহরবাসীকে জিজ্ঞাসা করে মনে করতে পারবে না। সপ্তাহের পর সপ্তাহ শহর জুড়ে চলছে অস্বস্তিকর আবহাওয়া। অন্যন্য জেলাগুলিতে বৃষ্টি কখনও ঝড়ো হাওয়ার দেখা মিললেও কলকাতার ঝুলি ঠেকেছে শূন্য। সকালের পূর্বাভাসে সেই চাহিদার খালি ঝুলি সামান্য ভরতে পারে। পুরোটাই অবশ্য নির্ভর করছে মেঘের স্তায়িত্বের উপর। শনিবার ভোররাতেই যেমন কলকাতাহ , উত্তর ২৪ পরগণার বিস্তীর্ণ অঞ্চলে বৃষ্টি শুরু হয়। বৃষ্টি তেমন জোরে না হলেও বিদ্যুতের ঝলকানি অনেক বেশি রয়েছে। রয়েছে মেঘের গর্জন।

স্থানীয়ভাবে মেঘ জমেই এই বৃষ্টি বলে জানাচ্ছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর। বিদ্যুতের ঝলকানি বেশি অর্থাৎ মেঘের বেশি বৃষ্টির শক্তি কম। ফল হালকা বৃষ্টি। শুক্রবার শুক্রবার সন্ধ্যা ৭.৪৫ নাগাদ হাওয়া অফিস জানিয়েছিল, রাত ৮টা থেকে দুই তিন ঘণ্টার মধ্যে কলকাতা এবং দুই ২৪ পরগণায় ৩ থেকে ৪০ কিলোমিটার গতিতে ঝড়ো হাওয়া বইতে পারে। বজ্রবিদ্যুতসহ বৃষ্টির সতর্কতা দিয়েছিল হাওয়া অফিস। সে সব কিছু হয়নি।

হাওয়া অফিসের দেওয়া ওই সময়ের অনেক পরে মেঘের গর্জন শুরু হয়। রাত আড়াইটে থেকে হালকা বৃষ্টি শুরু হয়। তারপর বৃষ্টির চেয়ে মেঘের তর্জন গর্জনেই সব থেমে যায়। তবে ওই বৃষ্টির জেরে সামান্য তাপমাত্রা কমেছে। সর্বনিম্ন ২৯.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা স্বাভাবিকের থেকে তিন ডিগ্রি বেশি। তা শনিবার সকালে হয়েছে ২৬.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা স্বাভাবিক। শুক্রবার শহরের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৬.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা স্বাভাবিকের থেকে এক ডিগ্রি বেশি। এর অবশ্য কোনও হেরফের হয়নি। আর্দ্রতার পরিমাণ সর্বোচ্চ ছিল ৮৪ ও সর্বনিম্ন ৫৪ শতাংশ। এক সকালবেলা আবার তা বেড়ে হয়েছে সর্বোচ্চ ছিল ৯৩ ও সর্বনিম্ন ৫২ শতাংশ।

হাওয়া অফিস আবার এও জানিয়েছে, আজ বৃষ্টি হলে তা সাময়িক স্বস্তি ছাড়া শহর কিছু পাবে না। আবহাওয়া সাময়িক কিছুটা ভালো হতে পারে।