নয়াদিল্লি: ‘বাংলায় আমরাই ক্ষমতায় আসছি৷’দিল্লিতে বিজেপির জাতীয় পরিষদের বৈঠক চলাকালীন সাফ জানিয়ে দিয়েছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ৷ একথা অমিত যে আগি বলেননি, তেমন নয়৷ গতবছরের অগস্ট মাসে কলকাতার মেয়ো রোডের জনসভায় দাঁড়িয়ে অমিত বলেছিলেন – বাংলা থেকে তৃণমূলের সরকারকে উপড়ে ফেলতে হবে৷ কিন্তু বাংলার বাইরে দলের জাতীয় পরিষদের মঞ্চ থেকে ‘বাংলায়’ক্ষমতায় আসার ঘোষণা এই প্রথম করেছেন অমিত৷

শুক্রবার অমিত শাহের ঘোষণা থেকেই পরিষ্কার, দেশের পূর্বদিকেই নজর রাখছে বিজেপি৷ ‘হিন্দি হার্টল্যান্ড’ ছত্তিশগড়, মধ্যপ্রদেশ, রাজস্থানে ক্ষমতা ধরে রাখতে পারেনি বিজেপি৷ কিন্তু উচ্চবর্ণের জন্য ১০ শতাংশ সংরক্ষণ করতে চেয়ে ওই রাজ্যগুলিতে আবার হাল ধরতে চেয়েছে মোদী সরকার৷ কিন্তু বাংলা-ওড়িশা হতে দাক্ষিণাত্যে বিজেপির নজর হয়েছে৷ নজরে রয়েছে উত্তর পূর্ব৷ পূর্ব এবং উত্তর পূর্ব ভারত থেকে বিজেপি ৩৪ লোকসভা আসন পেতে চায়৷ সেই স্বপ্ন পূরণ করতে হলে বাংলা এবং ওড়িশা থেকে বড় সংখ্যায় আসন পেতেই হবে বিজেপিকে৷

অমিত শাহের বাংলা জয়ের হুঙ্কারের পিছনে যে যুক্তি রয়েছে তা হল , রাজ্যে পঞ্চায়েত নির্বাচনে পাওয়া বিজেপির ২৭ শতাংশ ভোট বেড়ে যদি ৪৫ শতাংশ হয়, একমাত্র তাহলেই পশ্চিমবঙ্গে ২২টি লোকসভা আসন পেতে পারে বিজেপি৷ রাজনৈতিক মহল এবং নির্বাচন বিশেষজ্ঞদের মতে বাংলায় বাড়তি ১৮ শতাংশ ভোট জোগার করা বিজেপির পক্ষে অত্যন্ত কঠিন কাজ হবে৷ তবে এই ১৮ শতাংশের গণ্ডি টোপকে যেতে পারলে তবেই অমিত শাহের ২২টি লোকসভা আসন জয়ের স্বপ্ন সফল হবে৷

লোকসভা নির্বাচনের আগে নির্বাচনের আগে বাংলায় বিজেপি বেশ কিছু চমক দিতে তৈরি হয়েছে৷ রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের ঘর ভেঙে অন্তত ৬জন সাংসদকে দলে নিচ্ছে বিজেপি – এই হুমকি দিয়েছেন বিজেপি নেতা মুকুল রায়৷ ইতিমধ্যেই তৃণমূল কংগ্রেস থেকে সাংসদ সৌমিত্র খান যোগদান করেছেন৷ দিলীপ ঘোষেদের বক্তব্য – এসবে বউনি করা হয়েছে৷ আবার দলে দলে আসবেন৷

বাংলায় লোকসভায় ভালো ফলাফল করে মমতাকে চাপে রাখার চেষ্ঠা করছেন আমিত৷ বলছেন মোদীজিকে আবার ক্ষমতায় আনুন৷ বাংলা খেরে কেরালা, গেরুয়া পতাকা উড়বে পতপত করে৷ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অবশ্য রাত পর্যন্ত অমিতের ভাষণের কোনও পালটা জবাব দেননি৷