নিউইয়র্ক: প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর প্রশংসায় পঞ্চমুখ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। নিউইয়র্কে রাষ্ট্রসংঘের সাইডলাইন বৈঠকে ফের একবার মিলিত হন এই দুই রাষ্ট্রনেতা। সেখানে দ্বিপাক্ষিক একাধিক বিষয়ে দুজনের কথা হয়। মঙ্গলবার সেই বৈঠক শেষেই প্রধানমন্ত্রী মোদীর উচ্চ প্রশংসা শোনা গেল ট্রাম্পের গলায়। তাঁর কাছে মোদীর মহান নেতা। এমনকী নরেন্দ্র মোদীকে ফাদার অফ ইণ্ডিয়া বলতেও পিছপা হননি মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

এদিন রাষ্ট্রসংঘের সাইডলাইন বৈঠকে মোদীকে নিখাদ ভদ্রলোক ও বিশ্বস্ত বন্ধু হিসেবে উল্লেখ করে বলেন আগে ভারতের ভাবমূর্তি বিশ্বের কাছে স্পষ্ট ছিল না। একতার অভাব, মতবিরোধ, রাজনীতির লড়াইয়ে দীর্ণ ভারত বেশি নজরে আসত। কিন্তু একজন সত্যিকারের অভিভাবকের মত ভারতকে বিশ্বের দরবারে তুলে ধরেছেন মোদী। তাই আমরা সবাই ওনাকে ফাদার অফ ইণ্ডিয়া নামেই সম্বোধন করি।

নিউ ইয়র্কে রাষ্ট্রসংঘের জেনারেল অ্যাসেম্বলির ফাঁকে বৈঠকে বসেছিলেন দুই রাষ্ট্রনেতা। এদিন মোদী-ট্রাম্প বৈঠকে গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। ভারত ও আমেরিকা দুই দেশের মধ্যে শীঘ্রই বাণিজ্য চুক্তি হবে বলে জানা গিয়েছে।

পাশাপাশি, সোমবারই পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সঙ্গে বৈঠকে কাশ্মীর নিয়ে তাঁর মধ্যস্থতা করার কথা বলেছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ইমরান খানের সঙ্গে বৈঠকের আগে, যৌথ বিবৃতিতে, প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, যদি ভারত ও পাকিস্তান চায়, তাহলে কাশ্মীর নিয়ে তিনি মধ্যস্থতায় “প্রস্তুত ও ইচ্ছুক”। এর আগেও পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরানের মার্কিন সফরের সময় ট্রাম্প দাবি করেছিলেন, “ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী কাশ্মীর সমস্যার সমাধানে আমার সাহায্য চেয়েছেন৷ এই বিষয়ে সাহায্য করতে পারলে আমি খুবই খুশি হব। আমি দুই দেশের মধ্যস্থতাকারী হতে রাজি।”