মুম্বই: কয়েক ঘণ্টা পরেই বিশ্বকাপ খেলতে লন্ডনের বিমান ধরবে কোহলি অ্যান্ড কোং৷ অধিনায়ক হিসেবে প্রথমবার বিশ্বকাপের ভারতকে নেতৃত্ব দেবেন বিরাট৷ ১৯৯২-এর পর বিশ্বকাপের নতুন ফর্ম্যাটকে চ্যালেঞ্জিং বলছেন ভারত অধিনায়ক৷ ১৯৯২-এর চ্যাম্পিয়নদের বিরুদ্ধে বিরাটরা মাঠে নামে ১৬ জুন৷ ম্যাঞ্চেস্টার মহারণই বিশ্বকাপের ইউএসপি৷

৩০ মে ইংল্যান্ড ও ওয়েলসের মাটিতে শুরু হচ্ছে ওয়ান ডে বিশ্বকাপের দ্বাদশ সংস্করণ৷ কেনিংটন ওভালে উদ্বোধনী ম্যাচে আয়োজক ইংল্যান্ডের সামনে দক্ষিণ আফ্রিকা৷ ভারত বিশ্বকাপ অভিযান শুরু করবে আরও কয়েকদিন পর৷ ৫ জুন টাইটানিকের শহর সাউদাম্পটনের রোজ বোলে বিরাটদেরও প্রথম প্রতিপক্ষ দক্ষিণ আফ্রিকা৷

দেশ ছাড়ার আগে মঙ্গলবার ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের সদর দফতর মুম্বইয়ের ক্রিকেট সেন্টারে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়েছিলেন ক্যাপ্টেন কোহলি ও কোচ রবি শাস্ত্রী৷ ২৭ বছর পর ফের বিশ্বকাপ ফিরেছে রাউন্ড-রবিন ফর্ম্যাটে৷ শেষবার এই ফর্ম্যাটে ওয়ান ডে বিশ্বকাপ হয়েছিল ১৯৯২ সালে অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের মাটিতে৷ এই ফর্ম্যাটের বিশ্বকাপকে অত্যন্ত চ্যালেঞ্জিং বলছেন ভারত অধিনায়ক৷ সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে ক্যাপ্টেন কোহলি বলেন, ‘এটা অত্যন্ত চ্যালেঞ্জিং বিশ্বকাপ হতে চলেছে৷ যে কোনও দল আপসেট করতে পারে৷ আমাদের দ্রুত পরিবেশ ও পরিস্থিতির সঙ্গে মানিয়ে নিতে হবে৷’

ক্যাপ্টেন হিসেবে প্রথম ও ক্রিকেটার হিসেবে তৃতীয় বিশ্বকাপে নামতে চলেছেন বিরাট৷ এর আগে মহেন্দ্র সিং ধোনির নেতৃত্বে ২০১১ ও ২০১৫ বিশ্বকাপ খেলেছেন কোহলি৷ ইংল্যান্ডের বিমানে ওঠার আগে, বিশ্বকাপের চাপ নিতে তৈরি গোটা দল, এমনটাই জানালেন ‘মেন ইন ব্লু’ কাপ্তান৷

বিশ্বকাপের আগে ঘরের মাঠে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ওয়ান ডে সিরিজ খেলছে ইংল্যান্ড৷ পাঁচ ম্যাচের সিরিজে তিন ম্যাচে দুই দলই ৩৪০ প্লাস রান তুলেছে৷ এই সিরিজ দেখেই বিরাট মনে করেন, বিশ্বকাপে প্রতিটি ম্যাচই হাই স্কোরিং হতে চলেছে৷ সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে ভারত অধিনায়ক বলেন, ‘বিশ্বকাপে এবার হাই স্কোরিং ম্যাচ আশা করছি৷ সেই অনুয়ায়ীই দল প্রস্তুতি নেবে৷’

তবে এখনই বিশ্বকাপে ভারত-পাক মহারণ নিয়ে ভাবতে চান না ক্যাপ্টেন কোহলি৷ বিশ্বকাপে ভারত-পাকিস্তান লড়াই ১৬ জুন ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে৷ ম্যাঞ্চেস্টার মহারণ নিয়ে অবশ্য এখনই মাথা ঘামাতে চান না ভারত অধিনায়ক৷ কারণ পাকিস্তানের বিরুদ্ধে মাঠে নামার আগে তিনটি গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ খেলবে ভারত৷ প্রথম প্রতিপক্ষ দক্ষিণ আফ্রিকা ছাড়াও বিরাটদের বাকি দু’টি ম্যাচ হল অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ড৷ অর্থাৎ মহারণে নামার আগে গতবারের চ্যাম্পিয়ন ও রানার্সদের বিরুদ্ধে খেলবে বিরাট অ্যান্ড কোং৷

ভারত-পাক ম্যাচ নিয়ে কোহলি বলেন, ‘কোনও দলকে নিয়ে আলাদা করে ভাবলে আমরা বিশ্বকাপের লক্ষ্য থেক সরে যাব৷ কারণ আমাদের প্রস্তুতিতে কোনও পার্থক্য হবে না৷ প্রতিপক্ষকে নিয়ে ভাবার থেকে আমাদের ফোকাস হওয়া উচিত নিজেদের শক্তি নিয়ে৷ আমরা এটাই করতে চলেছি৷’

বিশ্বকাপে বিরাটরা ভারতীয় সেনাবাহিনীর থেকে মোটিভেশন পাবে বলে মনে করেন কোহলি৷ কয়েক মাস আগেই পুলওয়ামায় ভারতীয় সেনাবাহিনীর উপর জঙ্গিহানায় সোচ্চার হয়েছিল দেশ৷ পাক মদতপুষ্ট জঙ্গিহানায় ৪০ জন সিআরপিএফ জওয়ান শহিদের ঘটনায় গর্জে উঠে সাধারণ মানুষ৷ ঘটনার তীব্র নিন্দা করে শহিদ পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন ভারতীয় ক্রীড়াবিদরা৷