কলকাতা: ইস্টবেঙ্গল সমর্থকদের হৃদস্পন্দন যেন কোথাও গিয়ে আটকে রয়েছে। অপেক্ষা একটা দীর্ঘশ্বাসের। সেটা হতাশার হবে নাকি আনন্দের, জানতে আরও কিছুদিন ধৈর্য্য ধরতেই হবে। তবে সময় যত এগোচ্ছে ক্লাবের আইএসএল খেলার সম্ভাবনা নাকি বাড়ছে। আগে ছিল ৫০ শতাংশ, এই মুহূর্তে সেই সম্ভাবনা বেড়ে হয়েছে ৮০ শতাংশ। একটি সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে রবিবার এমনটাই জানিয়েছেন লাল-হলুদের কার্যনির্বাহী সমিতির অন্যতম সদস্য দেবব্রত সরকার।

একটি নির্দিষ্ট ভেন্যুতে (রাজ্য) খেলা, তার উপর দর্শকশূন্য পরিমন্ডল। এমন সময় আইএসএল আয়োজক কমিটি (এফএসডিএল) যতোই মুখে বলুক ১০টি দলের বেশি আসন্ন মরশুমে আর কোনও দল তারা নেবে না, হিসেব কিন্তু অন্য কথা বলছে। ঐতিহ্যের কলকাতার বড় ম্যাচই যদি অনুরাগীরা মিস করে যান তাহলে যে কোনও লিগই তার মাহাত্ম্য হারাবে। তাই মোহনবাগান এটিকে’র সঙ্গে সংযুক্ত হয়ে আইএসএল খেলার জন্য তৈরি হওয়ার পর ইস্টবেঙ্গলের অন্তর্ভুক্তিও এফএসডিএল চাইবে। অন্ততপক্ষে বড় ম্যাচ সম্প্রচার করে মুনাফার কথা মাথায় রেখে।

কিন্তু আইএসএল খেলার জন্য চাই ইনভেস্টর। ২০০ কোটি টাকার ব্যাংক গ্যারান্টি। সেদিকে কতদূর এগোল লেসলি ক্লডিয়াস সরণির ক্লাব। সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে দেবব্রত সরকার ওরফে নীতু দা জানিয়েছেন, ‘আইএসএলের দরজা এখনও আমাদের জন্য দারুণভাবে খোলা রয়েছে। এর আগে আমরা ৫০ শতাংশ আত্মবিশ্বাস ছিলাম। কিন্তু এই মুহূর্তে যা পরিস্থিতি তাতে সম্ভাব্য বেশ কিছু স্পনসরের সঙ্গে আমাদের দর কষাকষি চলছে। আমরা আইএসএলের পথে এখন ৮০ শতাংশ পা বাড়িয়ে আছি। চূড়ান্ত আলোচনার মধ্যে রয়েছি আমরা। আসন্ন মরশুমে লক্ষ্যে পৌঁছনোর ব্যাপারে আমরা ভীষণ আশাবাদী।

‘দেবব্রত বাবু আরও বলেন, ‘অতিমারী পরিস্থিতির জন্য গোটা বিষয়টা বিলম্বিত হচ্ছে। আশা করি সমর্থকেরা সেটা বুঝবে। আমরা চুক্তি চূড়ান্ত করার জন্য সর্বোতভাবে চেষ্টা করছি এবং আশা করি শীঘ্রই ক্লাবের নতুন ইনভেস্টরের নাম ঘোষণা করা হবে।

‘৭ অগস্ট প্রাথমিকভাবে আসন্ন মরশুমে আইএসএলের ভেন্যু এবং দিনক্ষণ ঘোষিত হওয়ার কথা থাকলেও টেকনিক্যাল কারণে ১০ অগস্ট অবধি তা পিছিয়ে গিয়েছে। উল্লেখ্য, সম্প্রতি একটি বাংলা ক্রীড়া সংবাদমাধ্যমকে সাক্ষাৎকারে ইস্টবেঙ্গলের আসিয়ান জয়ী কোচ সুভাষ ভৌমিক জানিয়েছেন, ‘এফএসডিএল যারা পরিচালনা করেন তারা বোকা নন। তারা জানেন ইস্টবেঙ্গল আইএসএল খেললে তাদের কতোটা মুনাফা হবে, কতোটা ভিউয়ারশিপ বাড়বে। ইস্টবেঙ্গল আইএসএলে যোগ দিলে এফএসডিএলের পাশাপাশি লাভবান হবে ব্রডকাস্টিং সংস্থাও।’

এরইমধ্যে খবর এফএসডিএলের কাছে ইতিমধ্যেই লাল-হলুদ কর্তারা জার্সির ডিজাইনও পাঠিয়ে দিয়েছেন। যদিও এই খবরের সত্যতা স্বীকার করেননি ইস্টবেঙ্গল কর্তারা।  সবমিলিয়ে ইস্টবেঙ্গলের আইএসএলে যোগদান নিয়ে জল্পনা তুঙ্গে।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও