কলকাতা: করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হল রাজ্যের এক সরকারি আধিকারিকের। তিনি ছিলেন হুগলির ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট। সোমবার সকালে হাসপাতালেই তাঁর মৃ্ত্যু হয়েছে।

গত কয়েকদিন ধরেই অসুস্থ ছিলেন তিনি। এরপরই তাঁর করোনা পরীক্ষা করা হয়। টেস্টের রিপোর্ট পজিটিভ আসে। প্রথমে হোম আইসোলেশনে ছিলেন তিনি। পরে তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

কলকাতা হাসপাতালে ভর্তি হতে না পারায় তাঁকে হুগলি শ্রমজীবী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

দেবদত্তা রায় নামে ওই আধিকারিক ২০১০ সালের ডব্লিউবিসিএস আধিকারিক। হুগলি জেলাশাসকের দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, সপ্তাহখানেকের বেশি তিনি অসুস্থ ছিলেন। এর পর কলকাতায় তিনি কোভিড পরীক্ষা করান। সেই রিপোর্ট পজিটিভ হয়। দমদমের লিচুবাগানের বাসিন্দা তিনি।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে, দেবদত্তাকে যখন ভর্তি করা হয় তখন তাঁর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা খুব কমে এসেছিল। তাঁর সংক্রমণও বেড়ে গিয়েছিল।

হুগলির জেলাশাসকের দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, পরিযায়ী শ্রমিকরা রাজ্যে ফেরার পর ডানকুনিতে যে ট্রানজিট ক্যাম্পের ব্যবস্থা করা হয়েছিল তার দায়িত্বে ছিলেন দেবদত্তা। হুগলিতে কাজ করার আগে তিনি ব্লক উন্নয়ন আধিকারিক হিসাবে কাজ করেন পুরুলিয়াতে। বাড়িতে তাঁর চার বছরের শিশুসন্তান রয়েছে।

তবে কোথা থেকে তিনি আক্রান্ত হলেন তা স্পষ্ট নয়। কারণ হুগলিতে তাঁর কর্মক্ষেত্র এবং তাঁর বাড়ির এলাকা, সাম্প্রতিক অতীতে দুই জায়গাতেই কোভিডের ব্যাপক সংক্রমণের ঘটনা ঘটেছে। হুগলিতে মোট সংক্রমণের সংখ্যা দেড় হাজার ছাড়িয়েছে। অন্য দিকে, উত্তর ২৪ পরগনায় রবিবার রাত পর্যন্ত সক্রিয় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় আড়াই হাজার।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ