লখনউ: বিমানবন্দর ধ্বংস করার হুমকি দিল সন্ত্রাসবাদীরা৷ লখনউয়ের অমৌসি বিমানবন্দরে এই খবর ছড়িয়ে পড়েতেই হাই অ্যালার্ট জারি করা হয়৷ সিআইএসএফ ও সিভিল পুলিশের আধিকারিকরা বিমানবন্দরের প্রতিটি কোণায় তল্লাশি চালান৷ বিমানবন্দরে উপস্থিত কর্মচারী ও যাত্রীদেরও জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়৷ এমনকি সমস্ত সিটিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখা হয়৷ শনিবার গভীর রাত পর্যন্ত বিমানবন্দর থেকে কাউকে বের হতে দেওয়া হয়নি৷

সংবাদমাধ্যম অমর উজালার খবর অনুযায়ী, কৃষ্ণনগর থানার সিও অনবীশ কুমার মিশ্রা জানিয়েছেন, মুম্বই কার্যালয়ের ট্রাফির কন্ট্রোলে লখনউ থেকে এক ব্যক্তি ফোন করে জানান তিনি অমৌসি বিমানবন্দরে চারজন সন্দেহভাজনকে ঘোরাফরা করতে দেখেছেন৷ তারা বিমানবন্দরে বোমা বিস্ফোরণ করার কথা বলছিল৷ এছাড়াও তারা এয়ার ইন্ডিয়ার দুটি বিমানে বিস্ফোরণ ঘটনোর কথা বলেছিল৷ ওই ব্যক্তি আরও জানায় চার সন্দেহভাজনের কাছে বিপুল পরিমাণে বিস্ফোরক মজুত রয়েছে৷ যদিও যে ব্যক্তি ফোন করেছিল সে নিজের নাম, ঠিকানা বলার আগেই ফোন কেটে দেয়৷

এই খবর পাওয়ার পরেই মুম্বইয়ের এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোলের আধিকারিকরা মুম্বই এটিএসকে এই খবর জানায়৷ পাশাপাশি উত্তরপ্রদেশ পুলিশ ও গোয়ান্দা বিভাগেও এই খবর জানান হয়৷ খবর প্রকাশ্যে আসার কিছুক্ষণের মধ্যেই গোটা অমৌসি বিমানবন্দরের নিরাপত্তা বাড়িয়ে দেওয়া হয়৷ পুলিশের তরফ থেকে বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়৷

সিআইএসএফ ও সিভিল পুলিশ গোটা বিমানবন্দরে তল্লাশি চালায়৷ যদিও পুলিশ কোনও সন্দেহভাজনকে খুঁজে পাননি, এমনকি কোনও বিস্ফোরকও উদ্ধার হয়নি৷ গোয়েন্দা বিভাগের পক্ষ থেকে মুম্বই এয়ার ট্রাফিককে ফোন করে যে ব্যক্তি বিস্ফোরণের খবর দিয়েছিল তার খোঁজ করা হয়৷ তবে গভীর রাত পর্যন্ত ওই ব্যক্তির কোনও খোঁজ পাওয়া যায়নি৷

লখনউ বিমানবন্দরের নির্দেশক এসসি হোতা জানিয়েছেন, মুম্বই থেকে বিস্ফোরণের আশঙ্কার খবর পাওয়ার পরেই নিরাপত্তা সংস্থাকে সতর্ক করা হয়৷ গোটা বিমানবন্দর নিরাপত্তার চাদরে মুড়ে ফেলা হয়৷ এছাড়াও অ্যাম্বুলেন্স ও দমকল বিভাগকেও সতর্ক করা হয়৷ যদিও গভীর রাত পর্যন্ত তল্লাশি চালিয়েও বিস্ফোরকের কোনও সন্ধান পাওয়া যায়নি৷