টনটন: জীবনে কোনও গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা যেমন অনেককিছু শিক্ষা দিয়ে যায়, তেমনই হয়তো বিনয়ী করে তোলে মানুষকে। স্যান্ডপেপার গেট কান্ডও ডেভিড ওয়ার্নারের জীবণকে হয়তো তেমনই সংযমী ও বিনয়ী করে তুলেছে। বুধবার টনটনে তাঁর রাজকীয় শতরানকে প্ল্যাটফর্ম করে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে জয় ছিনিয়ে নিয়েছে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নরা। আর ম্যাচ শেষে তাঁর ম্যান অফ দ্য পুরস্কারটি এক খুদে সমর্থকের হাতে তুলে দিলেন অজি ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার।

বল বিকৃতির কালো ছায়া কাটিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরে বুধবার প্রথম শতরানটি এসেছে তাঁর ব্যাট থেকে। দিনের শেষে ৪১ রানে জয়ে টুর্নামেন্টের তৃতীয় জয়টি তুলে নিয়েছে তাঁর দলও। আর ম্যাচ শেষে বিশ্বকাপ ক্রিকেটের অফিসিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্টে একটি ভিডিও শেয়ার করা হয়। যেখানে দেখা যাচ্ছে তাঁর এক খুদে ভক্তকে অকাতরে সই বিলোচ্ছেন ওয়ার্নার। এমনকি অনবদ্য শতরানে জিতে নেওয়া ম্যান অফ দ্য ম্যাচের পুরস্কারটিও নিঃসংকোচে বিলিয়ে দিচ্ছেন সেই ভক্তকে।

পরে ওয়ার্নারের সেই খুদে ভক্তকে এব্যাপারে জিজ্ঞেস করা হলে সে জানায় সে একজন ওয়ার্নারের অন্ধ ভক্ত। গ্যালারিতে তাঁকে পতাকা ওড়াতে দেখে ওয়ার্নার এগিয়ে এসে তাঁকে সই বিলিয়ে দেয় এবং শেষে ম্যান অফ দ্য ম্যাচ পুরস্কারটি তাঁর হাতে তুলে দেয়। ঘটনায় সে ভীষণই উচ্ছ্বসিত বলে জানায় ওয়ার্নারের সেই খুদে ভক্ত। স্বভাবতই এই ঘটনায় ক্রিকেট ফ্যানেদের মধ্যে এক দৃষ্টান্ত স্থাপন করেন ওয়ার্নার।

অন্যদিকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে কামব্যাকের পর প্রথম শতরান করে উচ্ছ্বসিত ওয়ার্নারও। ম্যাচ জয়ের পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেট সার্কিটে তাঁর ফিরে আসার অনুপ্রেরণা হিসেবে স্ত্রী ক্যান্ডিস ওয়ার্নারকে প্রশংসায় ভরিয়ে দেন তিনি। ম্যাচের পর ওয়ার্নার জানান, ‘আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরে আসার অনুপ্রেরণা হিসেবে আমার স্ত্রী ও সন্তানরা সবসময় পাশে থেকেছে। আমার স্ত্রী আমার অবলম্বন। ও যে কোনও বিষয়ে বদ্ধপরিকর, সুশৃঙ্খল এবং নিঃস্বার্থ।’

একইসঙ্গে তাঁর স্ত্রী’কে ‘কঠোর’ আখ্যা দিয়ে ওয়ার্নার জানান, ‘নির্বাসনের মত কঠিন সময় তাঁর স্ত্রী তাঁকে ঘুম থেকে নিয়ম করে তুলে দৌড় করাতো ও অনুশীলনে ডুবিয়ে রাখত। আমার ভালোর জন্য যা যা করার কঠিন সময় সবকিছুই সে করেছে।’ এদিকে আগামী শনিবার শ্রীলঙ্কা ম্যাচের আগে এখন স্ত্রী ও পরিবারকে সময় দিতে পারবেন অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটাররা। বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হল সেই সময়সীমা।