নয়াদিল্লি: গাড়ি চালকদের জন্য বড়সড় স্বস্তির খবর শোনাল কেন্দ্র। মঙ্গলবার কেন্দ্রের তরফে জানানো হয়েছে ড্রাইভিং লাইসেন্স রিনিউ, লার্নার লাইসেন্স নেওয়া, ডুপ্লিকেট লাইসেন্স নেওয়া সহ মোট ১৮ টি কাজ আধার বেস অথেনটিকেশন পদ্ধতিতেই করা যাবে। অর্থাৎ এসব ক্ষেত্রে আর প্রয়োজন নেই আরটিও (RTO) অফিস যাওয়ার।

এছাড়া গাড়ির জন্য সাময়িক রেজিস্ট্রেশনও এখন থেকে অনলাইনে করা যাবে বলে ওই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে।

আরও খবর পড়ুন – ২০০১ বিধানসভা ভোটের আগে জ্য়োতি বসুর বদলে বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য হলেন মুখ্যমন্ত্রী

উল্লেখ্য, প্রত্যেক নাগরিককে তাঁর ড্রাইভিং লাইসেন্স ও আরসির সঙ্গে ১২ ডিজিট নম্বর লিংক করার ক্ষেত্রে একটি ড্রাফট নোটিফিকেশন কেন্দ্রের তরফে জারি করার পরেই ওই খবর জানানো হয়েছে। ভারত সরকার বিজ্ঞপ্তি দিয়ে জানিয়ে দিয়েছে, ড্রাইভিং লাইসেন্স রিনিউ, লার্নার লাইসেন্স নেওয়া, ডুপ্লিকেট লাইসেন্স নেওয়া ইত্যাদি সব কাজ অনলাইনেই করা যাবে। এরফলে আবেদনকারীদের আরটিও (RTO) অফিসে যেতে হবে না।

এছাড়াও আরও যে যে ক্ষেত্রে এখন আর আরটিও অফিসে আসার দরকার নেই, তার মধ্যে রয়েছে, লার্নার লাইসেন্স, ড্রাইভিং লাইসেন্স রিনিউ, ডুপ্লিকেট লাইসেন্স, ড্রাইভিং লাইসেন্সে ঠিকানার পরিবর্তন, সাময়িক রেজিস্ট্রেশন ইত্যাদি।

আরও খবর পড়ুন – মহাকাশ গবেষণায় বিশ্বের অন্যতম সেরা দেশ ভারত, কেন জানেন?

আধার অথেনটিকেশন কোন কোন পরিষেবায় প্রয়োজন:

লার্নার লাইসেন্স, ড্রাইভিং লাইসেন্স রিনিউ, ডুপ্লিকেট লাইসেন্স, ড্রাইভিং লাইসেন্সে ঠিকানার পরিবর্তন, সাময়িক রেজিস্ট্রেশন, গাড়ির মালিকানা পরিবর্তনের জন্য আবেদন, সহ আরও বেশ কয়েকটি পরিষেবার ক্ষেত্রে প্রয়োজন আধার অথেনটিকেশন

বলা হচ্ছে, কেন্দ্রের এই পদক্ষপে সাধারণ মানুষের ওপর চাপানো বোঝা কিছুটা লাঘব হবে। কন্ট্যাক্ট লেস ভাবে পরিষেবা পাওয়া যাবে। একই সঙ্গে মনে করা হচ্ছে, এরফলে আরটিও (RTO) অফিসে ভিড় অনেকটা কমবে, ফলে আরও বেশি দক্ষতার সঙ্গে কাজ করতে পারবেন আধিকারিকরা।

আরও খবর পড়ুন – গ্যাস ও পেট্রোপণ্যের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে ৭ মার্চ পথে নামছেন মমতা

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।