মুম্বই: চতুর্দশ আইপিএলে ভারতের মাটিতে বিশ্বকাপের মহড়া৷ চলতি বছর অক্টোবরে ভারতে বসছে টি-২০ বিশ্বকাপের আসর৷ তারপর নিজেদের সেরাটা দিতে মরিয়া বিভিন্ন দেশের তরুণ ক্রিকেটাররা৷ আইপিএলে পারফর্ম করে শুধু ভারতে নয়, বিশ্বের অন্য দেশের ক্রিকেটাররাও জাতীয় দলে সুযোগ পেয়েছেন৷

ভারতের টি-২০ বিশ্বকাপের দলে উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান হিসেবে ঋষভ পন্তের সঙ্গে দৌড়ে রয়েছেন লোকেশ রাহুল, সঞ্জু স্যামসন ও ইশান কিশান৷ তবে এঁদের মধ্যে পন্তকেই বিশ্বকাপের দলে দেখতে চান ভারতীয় দলের প্রাক্তন ব্যাটসম্যান ভিভিএস লক্ষ্ণণ৷ আইপিএলে এবার দিল্লি ক্যাপিটালসকে নেতৃত্ব দিচ্ছে পন্ত৷ গত আইপিএলটা ভালো যায়নি৷ ফলে জাতীয় দলে তিন ফর্ম্যাটে জায়গা ধরে রাখতে ব্যর্থ হয়েছিলেন দিল্লির এই উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান৷

কিন্তু চলতি বছরের শুরুতে ভারতের অস্ট্রেলিয়া সফর পুর্ণজন্ম দিয়েছে পন্তকে৷ তারপর থেকে আর পিছনে তাকাতে হয়নি দিল্লির এই তরুণকে৷ এ কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে ভিভিএস বলেন, ‘উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান হিসেবে পন্তকে আমি সবসময় দলে চাই৷ ও অনেক উন্নত করেছে৷ উইকেটকিপিংয়েও ছাপ ফেলেছে৷ মিডল-অর্ডারে বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যান হিসেবেই নয়, ও কেন সময়ে প্রতিপক্ষের হাত থেকে ম্যাচ বের করে নিতে পারে৷ সুতরাং আমি ঋষভকেই পছন্দ করব৷’

অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজের আগে পর্যন্ত সাদা বলের ফর্ম্যাটে ভারতীয় দলে উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান হিসেব রাহুল খেলতেন৷ কিন্তু অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজে ব্যাট হাতে দারুণ পারফর্ম করে ফের ওয়ান ডে এবং টি-২০ দলে জায়গা করে নেন পন্ত৷ অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ভারতীয় ওয়ান ডে এবং টি-২০ দলে ছিলেন না পন্ত৷ কিন্তু আইপিএলের আগে ঘরের মাঠে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ওয়ান ডে এবং টি-২০ দলে জায়গা ফিরে পান দিল্লির এই তরুণ৷ তাঁর সাম্প্রতিক পারফরম্যান্সের ফলে এবার দিল্লি ক্যাপিটালসের শ্রেয়স আইয়ারের পরিবর্ত হিসেবে দলের নেতৃত্বের ব্যাটন পন্তের হাতে তুলে দেন৷ চোটের কারণে এবারের আইপিএল থেকে ছিটকে গিয়েছেন আইয়ার৷ নেতা হিসেবে এখনও পর্যন্ত চারটি ম্যাচের মধ্যে দিল্লিকে তিনটি জিতিয়েছেন পন্ত৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.