স্টাফ রিপোর্টার, জলপাইগুড়ি: লোকসভা ভোটে ইভিএম মেশিনে কারচুপি বন্ধ করতে ব্যবস্থা গ্রহণ করল প্রশাসন। নির্বাচনের প্রত্যেক পুলিং স্টেশনে বাধ্যতামূলক করে দিল ভিপিপ্যাট। ইভিএম মেশিনেই লাগানো থাকবে ভিপিপ্যাট মেশিন।

বৃহস্পতিবার জলপাইগুড়ি জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে একটি সাংবাদিক বৈঠক করা হয়। ইতিমধ্যে জলপাইগুড়ি জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ইভিএম মেশিন নিয়ে একাধিক রাজনৈতিক দলের প্রতিনিধিদের সঙ্গে জেলা প্রশাসনের আধিকারিকেরা কথা বলেছেন।

জলপাইগুড়ি ইভিএম আধিকারিক তথা নোডাল অফিসার দুলেল রায় বলেন, নির্বাচনের প্রত্যেক পুলিং স্টেশনের ভিপিপ্যাট বসানো হবে। এদিন এর কার্যকারিতা এবং কি কি কাজ রয়েছে এই ভিপিপ্যাটের সেই বিষয়ে সচেতন করা হল। প্রশাসনের নির্দেশে সাংবাদিক ও রাজনৈতিক দলের প্রতিনিধিদের বিষয়টি বুঝিয়ে দেওয়া হয়। এই কারণে এদিনের এই বৈঠক। এই বছরের নির্বাচনে ভিপিপ্যাট বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

জেলার প্রতিটি ভোট কেন্দ্রের সব বুথেই ধাপে ধাপে এই ভিভিপ্যাট মেশিন ও ইভিএম মেশিন প্রদর্শনের কাজ চলবে। এই মেশিনে ভোটাররা তাদের দেওয়া ভোট সাত সেকেন্ডের জন্য মেশিনে ভেসে উঠতে দেখতে পাবেন। মূলত নিজের ভোট সঠিক স্থানে পড়েছে কিনা তা যাচাইয়ের জন্যই এই ভিভিপ্যাট মেশিনের ব্যাবহার হবে ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনে।

ইতিমধ্যে বিভিন্ন জেলায় জেলায় এই ভিভিপ্যাট মেশিন নিয়ে শিবির করা হচ্ছে৷ এবার প্রথম লোকসভা ভোটে ভিভিপ্যাটের ব্যবহার শুরু করছে কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশন। ভোটার ভ্যারিফায়েড পেপার অডিট ট্রেল বা সংক্ষেপে ভিভিপ্যাট দেশ ও রাজ্যের সঙ্গে জলপাইগুড়িতেও ব্যবহার করা হবে। এর ফলে সংশ্লিষ্ট ভোটার নিজের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দেওয়ার পর তিনি নিশ্চিত হতে চাইলে এই বিশেষ যন্ত্রের সাহায্যে তা ফের দেখে নিতে পারবেন। তার আগে এই ব্যবস্থা সম্পর্কে সাধারণ মানুষকে প্রশিক্ষণ ও সচেতন করতে নানান উদ্যোগ নিয়েছে প্রশাসন।