ব্যারাকপুর: রাজনৈতিক কর্মীর পর এবার গুলিবিদ্ধ হলেন এক ভোটার। আক্রান্ত ব্যক্তির নাম শত্রুঘ্ন সিং। ভাটপাড়ার ঘটনা। ভোটশুরুর কিছুক্ষণের মধ্যেই এই ঘটনা ঘটে। গুলি চালানোর অভিযোগ তৃণমূলকর্মীদের বিরুদ্ধে।

শত্রুঘ্ন সিং নামে এক বৃদ্ধ যখন ভোট দিতে যান, সেইসময় চলছিল ব্যাপক বোমাবাজি। তার মধ্যে গুলি এসে লাগে শত্রুঘ্ন সিং নামে এক বৃদ্ধের গায়ে। আহত অবস্থায় তাঁকে ভাটপাড়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়াও এই ঘটনায় জখম হয়েছেন আরও তিনজন। এক কিশোরের গায়ে বোমার স্প্লিন্টার এসে লেগেছে। আহত হয়েছেন এক সিপিএম কর্মী গঙ্গা সাউ। গুলি চলেছে ভাটপাড়ার বিভিন্ন জায়গায়। বাইকে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে দুষ্কৃতীরা। রণক্ষেত্রের চেহারা নিয়েছে ভাটপাড়া। বিভিন্ন ঘটনায় পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছয় পুলিশ। পুলিশের গাড়ি লক্ষ্য করে গুলি বোমা ছোঁড়ে দুষ্কৃতীরা। পুলিশের অস্ত্র ছিনতাই করার চেষ্টা হয়েছে বলে অভিযোগ।

কলকাতা পুরভোটের পর সেই সন্ত্রাসের চিত্র বহাল রয়েছে এদিন জেলাতেই।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।