লখনউ: এখনও কেন্দ্রীয় মন্ত্রী মানেকা গান্ধীর কেন্দ্রে নির্বাচন হয়নি৷ তার আগেই নিজেকে জয়ী প্রার্থী ঘোষণা করে দিলেন৷ তবে এই জয়ের পিছনে সংখ্যালঘুদের অবদান না থাকলে ভোটের পর তিনিও ‘যথাযথ ব্যবস্থা’ নেবেন৷ আর সেটা আগে থেকেই সংখ্যালঘু ভোটারদের বুঝিয়ে দেন মানেকা গান্ধী৷

উত্তরপ্রদেশের সুলতানপুর কেন্দ্র থেকে এবার ভোটে দাঁড়িয়েছেন মানেকা৷ বৃহস্পতিবার সংখ্যালঘুদের জনসভায় তিনি জোর গলায় দাবি করেন, এই আসন থেকে তিনি জিতে গিয়েছেন৷ ক্যামেরার সামনে মানেকা বলতে শোনা যায়, ‘‘আমি তো জিতেই আছি৷ মানুষের ভালোবাসা ও সমর্থন আমাকে জয়ের স্বাদ এনে দেবে৷ কিন্তু এই জয়ে যদি মুসলিমদের সমান ভূমিকা থাকে তাহলে খুব খুশি হব৷ সেটা না হলে মন ভেঙে যাবে৷’’

মুসলিমরা তাঁকে ভোট না দিলে তার ফল কী হবে সেটাও আগাম বুঝিয়ে দেন বিজেপি প্রার্থী৷ বলেন, ‘‘নির্বাচন আসলে বিনিময় প্রথা৷ আমাকে ভোট দেবেন৷ বিনিময়ে আপনাদের কাজ করব৷ সংখ্যালঘুরা ভোট দিলেও আমি জিতব না দিলেও জিতব৷ কিন্তু ভোটের পর যদি কোনও মুসলিম আমার কাছে কোনও কাজ নিয়ে আসেন তখন আমিও ভাবব তাদের কাজ করব কিনা৷ আমরা সকলেই তো মহাত্মার সন্তান৷’’৷ শেষের কথাটি বলেই হেসে ফেলেন মানেকা৷

কিছুক্ষণ থেমে মানেকা বলেন, ‘‘আমি নিবার্চন জিতেই গিয়েছি৷ কিন্তু আপনাদের আমাকে দরকার হবে৷ এটাই সেই সুযোগ৷’’ মানেকার তিন মিনিটের ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল৷  তারপরেই কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর বিরুদ্ধে ভোটারদের চমকানোর অভিযোগ উঠেছে৷ ১০ দিন আগেই মানেকা এই কেন্দ্রে প্রচার শুরু করেন৷ এতদিন সুলতানপুর কেন্দ্রের সাংসদ ছিলেন তারই ছেলে বরুণ গান্ধী৷ দু’জনের আসনটি একে অপরকে দেওয়া হয়েছে৷ মা লড়বেন ছেলের আসনে৷ ছেলে লড়বেন মায়ের পিলিভিট কেন্দ্র থেকে৷ এই কেন্দ্র থেকে পরপর ছ’বার জিতে সাংসদ হন মানেকা গান্ধী৷