স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: আমফানের এক পক্ষ কাল পরও বহু জায়গায় ব্যাহত ইন্টারনেট পরিষেবা। টাকা খরচ করে দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন গ্রাহকরা। এর জন্য এয়ারটেল-ভোডাফোনকে একহাত নিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বুধবার নবান্নে এই দুটি টেলকম সংস্থাকে কড়া বার্তা দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি বলেছেন, “সাধারণ মানুষ টাকা দিয়েও পরিষেবা পাচ্ছেন না। প্রচুর ভোডাফোন, এয়ারটেল গ্রাহক ফোন করে অভিযোগ জানাচ্ছেন। ব্যবসা করতে হলে ব্যবসার মতো করেই করুন। বিরক্ত হয়ে ভোডাফোন, এয়ারটেল-এর উদ্দেশ্যে

মুখ্যমন্ত্রীর প্ৰশ্ন, “আপনারাই বলুন আর কত সময় লাগবে?” গত ২০ মে কলকাতা-সহ হাওড়া, হুগলি, দুই ২৪ পরগণা, পূর্ব মেদিনীপুরের বিস্তীর্ণ অঞ্চলে তাণ্ডব চালিয়েছিল ঘূর্ণিঝড় আমফান। যারমৃত্যুও হয় অন্তত ৮৭ জনের। পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে কোমর বেঁধে কাজ শুরু করে প্রশাসন। গাছ কেটে রাস্তা সাফ করতে নামানো হয়েছিল সেনাও। কিন্তু দুর্ভোগের ছবি এতটুকু ফিকে হয়নি ঝড় সরে যাওয়ার ১৫দিন পরেও।

এখনও দক্ষিণবঙ্গের বহু জায়গায় জরুরি দরকারে একে অন্যের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারছেনা। হোঁচট খাচ্ছে বাড়ি থেকে কাজের প্রক্রিয়া। এমনকি বসে গিয়েছে ল্যান্ডলাইনও।

এক্ষেত্রে সমস্ত পরিষেবাকারী সংস্থা বল ঠেলে দিয়েছে বিদ্যুৎ সরবরাহকারী ও পুর কর্তৃপক্ষের কোর্টে। তাদের বক্তব্য, শহরের রাস্তা পরিষ্কার ও বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত তারা ঠিকমতো পরিষেবা দিতে পারবে না।

বৃহত্তর কলকাতায় হাজার দশেকের মতো মোবাইল টাওয়ার রয়েছে। শহরে এখনও কিছু জায়গায় বিদ্যুৎ সরবরাহ ঠিক মত হচ্ছে না বলে অভিযোগ উঠছে। সিইএসসি’র কাজেও যে তিনি খুশি নন এদিন তা আরও একবার স্পষ্ট করলেন মমতা বন্দোপাধ্যায়। সমস্যা মেটাতে সিইএসসি’কে কয়েকজন বিশেষজ্ঞ নিয়ে একটি টেকনিক্যাল কমিটি তৈরির পরামর্শও দেন মুখ্যমন্ত্রী।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও