কলকাতা: মোবাইল ফোন আজকের দিনে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। আর সেই কারণেই বিভিন্ন কোম্পানির তরফে বাজারে নিয়ে আসা হয়েছে একের পর এক কোম্পানির ফোন। এমনকি বিভিন্ন বাজেটের মধ্যেও ফোন বাজারে নিয়ে আসা হয়েছে। আর তার ফলে সুবিধা পেয়েছে সাধারণ মানুষজন। তবে এবারে জানা গিয়েছে গ্রাহকদের জন্য দ্রুত আসতে চলেছে vivo s9।

মোবাইল ফোনের বাজারে খুব অল্প সময়ের মধ্যে নাম করেছে vivo। আন্তর্জাতিক বাজারেও যথেষ্ট জনপ্রিয় এই ব্র্যান্ড। ইতিমধ্যে তাদের তরফে নিয়ে আসা হয়েছে একাধিক সিরিজের ফোন। আর সেই কারণেই মনে করা হচ্ছে এবারে প্রি বুকিং শুরু হয়েছে vivo s9 ফোনের। জানা গিয়েছে চিনের বাজারে এই ফোন লঞ্চের আগে থেকেই শুরু হয়ে যাবে প্রি বুকিং। চিনের বাজারে বরাবর একাধিক সিরিজের ফোন নিয়ে আসে vivo। আর টা যথেষ্ট জনপ্রিয় হয়ে থাকে। জানা গিয়েছে এই ফোন লঞ্চের দিন ঠিক করা হয়েছে ৩ মার্চ। কিন্তু তার আগে থেকেই শুরু হয়ে গিয়েছে প্রি বুকিং। আর মনে করা হচ্ছে যথেষ্ট জনপ্রিয়তা পেয়েছে এই সিরিজ।

অনুমান করা হচ্ছে এই ফোনে থাকবে ৬.৪৪ ইঞ্চি ডিসপ্লের সুবিধা। এছাড়াও জানা গিয়েছে এই ফোনে থাকবে amoled ডিসপ্লের সুবিধা। তার সঙ্গে এই ফোনে থাকবে octa core mediatek dimensity 820 soc এর সুবিধাও। তার সঙ্গে জানা গিয়েছে এই ফোনে থাকবে ৪১০০ mah ব্যাটারির সুবিধা। এছাড়া এই ফোনে থাকবে 33 w দ্রুত চার্জের সুবিধা। তবে এই ফোনে কত মেমরি থাকবে টা জানা যায়নি। মনে করা হচ্ছে বাজারে থাকা বাকি ফোনকে টেক্কা দেওয়ার জন্য যথেষ্ট বেশি পরিমানে মেমরির সুবিধা থাকবে। পাশপাশি লঞ্চের সময়ে এই ফোনের দাম সামনে আনা হবে বলে মনে করা হচ্ছে। এর ফলে সুবিধা পাবেন মানুষজন। তবে আন্তর্জাতিক বাজারে এই ফোন কবে নিয়ে আসা হবে টা এখনো জানা যায়নি। তবে দ্রুত মনে করা হচ্ছে এই ফোন আন্তর্জাতিক বাজারেও নিয়ে আসা হবে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।