নয়াদিল্লি : শরীর স্বাস্থ্য ঠিক রাখতে ভিটামিনের জুড়ি মেলা ভার। তার ওপর করোনার জেরে সবাই এখন ভিটামিন সি খেয়ে প্রাণে বাঁচতে চাইছেন। কিন্তু চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ভিটামিন খেয়ে যাওয়া কিন্তু প্রচন্ড ক্ষতি করতে পারে শরীরের। সতর্ক করছেন চিকিৎসকরাই।

সব শরীরের ভিটামিন চাহিদা সমান নয়। তাই ভিটামিন গ্রহণ করতে হবে বুঝেশুঝে। বলছেন চিকিৎসকরা। চিকিৎসকরা জানাচ্ছেন করোনা থেকে বাঁচতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি খেতে শুরু করলে কিন্তু হিতে বিপরীত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে শুধু ভিটামিন সি নয়, অনেকেই নিজেদের ইচ্ছামত ভিটামিন ওষুধ খাচ্ছেন, দাবি শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়বে। কিন্তু আদপে মোটেও তা হচ্ছে না।

বরং এটা করতে গিয়ে বিপদ ডেকে আনছেন নিজেরই। বিশেষজ্ঞরা বলছেন অতিরিক্ত ভিটামিন শরীরে প্রবেশ করে তৈরি করতে পারে হাইপারভিটামিনোসিস। আমরা মূলত ভিটামিন এ, ডি, সি, ই ও বি৬ ভিটামিন খাই। এই ভিটামিনগুলি বেশি পরিমাণে শরীরে গেলে হতে পারে এই রোগ।

হাইপারভিটামিনোসিসের ফলে শরীর দুর্বল হয়ে পড়বে। ক্লান্তি আসবে, খিদে কমে যাবে, বমি বমি ভাব থাকবে, হাইপার ক্যালসেমিয়া ও শরীরে জলের অভাব দেখা দেবে বলে জানা গিয়েছে।

‘হু’এর নির্দেশ অনুযায়ী ভিটামিন সি-সমৃদ্ধ খাবার খাওয়া প্রয়োজন। কিন্তু কতটা খাবেন, সেই বিষয়ে নির্দেশ দেবেন চিকিৎসকরা। করোনার ঠেকাতে ভিটামিনের কোনও গুরুত্ব নেই একথা বলা ভুল, কিন্তু করোনা ঠেকাতে গিয়ে যদি অন্য ভাবে শরীর অসুস্থ হয়, সেটাও টিক নয়।

টক জাতীয় খাবারে মিলবে ভিটামিন সি, যা অনেকেরই ধারণা ফ্লু ঠেকায়। কিন্তু চিকিৎসকরা বলছেন এই ধারণা সঠিক নয়। ভিটামিন এ-র অভাবে যেমন ত্বক, হাড় ও চোখের ক্ষতি হতে পারে, তেমনি অতিরিক্ত ভিটামিন এ-র জন্য ত্বকের রংয়ের তারতম্য, হাইপারট্রফি হতে পারে।

চোখ ও মস্তিষ্কের গঠনে ব্যাঘাত ঘটাতে পারে অতিরিক্ত ভিটামিন এ। চিকিৎসক ইয়াশিকা গাদেসর বলছেন শরীর বুঝে খাবার খান। করোনা ঠেকাতে গিয়ে অন্য বিপদ ডেকে আনবেন না।

প্রয়োজনে চিকিৎসকের কাছে যেতে দ্বিধা করবেন না। ভিটামিন সি-কে এই করোনা আবহে ইমিউনিটি বুস্টার বলা হলেও, তারও পরিমাণ নির্দিষ্ট দরকার শরীরে। কোনও কিছুই অতিরিক্ত পরিমাণে ভালো নয়।

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।