স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: ঐতিহ্য ও থিমের ছোঁয়ায় কালীপুজো জমজমাট উত্তর ২৪ পরগণার বারাকপুর শিল্পাঞ্চলে৷ ঐতিহ্য মণ্ডিত কালীপুজো বলতেই প্রথমে যে পুজোর কথা উঠে আসে তা হল নৈহাটি ‘বড়মা’র পুজো৷ এছাড়া তো রয়েছে সার্বজনীন পুজোগুলি৷

মণিরামপুরের বটতলা স্পোর্টিং ক্লাবের এবার ৫৯ বছরে পদার্পণ করল। বটতলা স্পোর্টিং ক্লাবের এই বছরের পুজোর থিম ফেলে দেওয়া বর্জ্যের যথাযথ ব্যবহার। প্রায় আট হাজার ফেলে দেওয়া জলের বোতল দিয়ে মণ্ডপ সাজিয়েছেন পুজো উদ্যোক্তারা। আলোকসজ্জাতেও রয়েছে বিশেষত্ব। সবুজায়নকে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে আলোকসজ্জার মাধ্যমে। প্রত্যেক বছরই বারাকপুরের বড় কালী পুজোগুলির মধ্যে বটতলা স্পোর্টিং ক্লাবের পুজো দর্শনার্থীদের আকর্ষণের কেন্দ্রে থাকে।

এই বছরও সেই ধারা অব্যাহত রেখেছে এখানকার শ্যামা পুজো কমিটি। মূলত: জন সচেতনতার বার্তা দিতেই এই বছর ফেলে দেওয়া বর্জ্যের ব্যবহারকে তাদের পুজোর থিম হিসেবে বেছে নিয়েছেন পুজোর উদ্যোক্তারা। বারাকপুর মনিরামপুরের এই কালী পুজো দেখতে আগামী কয়েকটা দিন অন্যান্য বছরের মতো এই বছরও অসংখ্য দর্শনার্থী তাদের মণ্ডপে ভিড় জমাবে বলেই আশাবাদী পুজো উদ্যোক্তারা৷

কন্যা ভ্রূণ হত্যার বিরুদ্ধে সামাজিক সচেতনতার বার্তা দিতে দিচ্ছে উত্তর ২৪ পরগণার বারাকপুর ওয়ারলেস পাড়া যুবকবৃন্দ। নারী স্বাধীনতা তথা নারী মুক্তি এবছর এই পুজো কমিটির বিষয় ভাবনায় উঠে এসেছে। বিভিন্ন হাসপাতালের ফেলে দেওয়া ওষুধপত্র এবং চিকিৎসকদের ব্যাবহার করা অপ্রয়োজনীয় সামগ্রী ও আবর্জনা দিয়ে মণ্ডপ সজ্জা করেছেন এই পুজোর উদ্যোক্তারা।

বারাকপুর ওয়ারলেস পাড়া যুবকবৃন্দের পুজো এবার ৬৫ বছরে পদার্পণ করল। এই পুজো মণ্ডপে দর্শনার্থীদের বার্তা দেওয়া হয়েছে কন্যা ভ্রূণ হত্যার ক্ষতিকারক দিক সম্পর্কে। পুজো উদ্যোক্তারা জানিয়েছেন, জনগণকে সামাজিকভাবে সচেতন করে তোলার উদ্দেশ্যেই এই বছর কন্যা ভ্রূণ হত্যার ক্ষতিকারক দিক তারা তাদের বিষয় ভাবনায় ফুটিয়ে তোলার চেষ্টা করেছেন।