মুম্বই: সারা দেশে বর্তমানে কোভিডের(Covid-19) দ্বিতীয় ওয়েভের প্রভাবে এক উদ্বেগজনক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। তবে এর সূত্রপাত হয়েছিল গত বছর, যখন দেশে প্রথমবারের জন্য ছড়াতে শুরু করেছিল এই মারণ ভাইরাস। এই ভাইরাসের কারণে গত বছর মার্চ থেকে মে মাস অবধি সারা দেশ থমকে গিয়েছিল। কেন্দ্রীয় সরকার বাধ্য হয়ে মার্চ মাসে সারা দেশে লকডাউন ঘোষণা করে। প্রথমে ২১ দিনের জন্য ঘোষণা করলেও, পরে ধাপে ধাপে তা বাড়ানো হয়। জুন মাস থেকে আস্তে আস্তে লকডাউন তুলতে থাকে সরকার।

এই লকডাউনের সময়ে প্রায় সকল দেশবাসী নিজেদের পরিবারের সঙ্গে অনেক সময় কাটিয়েছিলেন। ভারতের জাতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক বিরাট কোহলিও(Virat Kohli) সেই সময়টা সহধর্মিণী অভিনেত্রী অনুষ্কার(Anushka Sharma) সঙ্গে মুম্বইয়ে নিজেদের বিলাসবহুল আবাসনে কাটিয়েছিলেন। সম্প্রতি তাঁদের দু’জনের সেই সময়কার একটি ভিডিও নেট দুনিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। যেখানে দেখা যাচ্ছে বিরাট ও অনুষ্কা একসঙ্গে নিজেদের আবাসনে ক্রিকেট খেলছেন।

গত বছর কোভিড সংক্রমণ আটকানোর জন্য দেশে সকল ক্রীড়া বিষয়ক কর্মসূচি বাতিল বা স্থগিত করা হয়েছিল। ভারতীয় দলের ক্রিকেটাররা অনেকটা সময় নিজেদের পরিবারের সঙ্গে ছুটি কাটাতে পেরেছিলেন। মার্চ মাসের মাঝামাঝি থেকে সেপ্টেম্বর মাসের মাঝামাঝি সময় অবধি তাঁদের কোনও সিরিজ খেলতে হয়নি। এরপর আস্তে আস্তে ত্রয়োদশ সংস্করণের আইপিএল-সহ (IPL) বিভিন্ন প্রতিযোগিতা শুরু হতে থাকে।

এই দীর্ঘ ছুটিতে ভারত অধিনায়ক কোহলি অনলাইনে বিভিন্ন সাক্ষাৎকার দিয়েছিলেন, অনেক লাইভ সেশনে এসেছিলেন, এবং বাকি সময়টা সহধর্মিণী অনুষ্কার সঙ্গে কাটিয়েছিলেন। সম্প্রতি গত বছরের লকডাউনের সময়ে বিরুষ্কার একসঙ্গে ক্রিকেট খেলার একটি ভিডিও আবার ভাইরাল হয়েছে। গত বছরেও এই ভিডিওটি নেটাগরিকদের মন জয় করেছিল।

ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে, প্রথমে অনুষ্কা ব্যাটিং করছেন। তাঁকে কয়েকটি বল করেন বিরাট। তারপর বিরাট ব্যাট করতে আসেন, এবং অনুষ্কা তাঁকে বল করেন। মাঝে অনুষ্কাকে একটি বাউন্সারও করতে দেখা যায়। ভিডিওটি কয়েকদিন ধরেই আবার নেট মাধ্যমে ঘুরছে। আর বলাই বাহুল্য অনুরাগীদের প্রিয় বিরুষ্কার এই মিষ্টি ভিডিও আবার তাঁদের মন জয় করে নিয়েছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.