বেজিং: কাঁপছে ভয়ে চিন। কারণ আতঙ্কের নাম করোনা ভাইরাস। হু হু করে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থার খবর, করোনার হামলায় মারা গিয়েছেন কম করে ৪১ জন। মৃতদের মধ্যে বেশিরভাগই হুবেই প্রদেশের বাসিন্দা।

আল জাজিরা জানাচ্ছে, শুক্রবার পর্যন্ত করোনা ভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা ৭৫২ জনে পৌঁছে গেল। অচিরেই চিনা রোগীর সংখ্যা হাজার ছুঁয়ে যাবে। রয়টার্স রিপোর্টে বলা হয়েছে, চিনের বাইরে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ইতিমধ্যে হাজার ছুঁয়েছে।

চিনা সংবাদ মাধ্যমের খবর, করোনা ভাইরাস আতঙ্কে হুবেই প্রদেশের ১৪ টি শহরের প্রবেশদ্বার বন্ধ। সরকারি নির্দেশ, বাইরের কেউ ভেতরে ঢুকতে পারবে না, শহরের ভেতরে থাকা কেউ বের হতে পারবে না।

এছাড়া সব ধরনের সমাবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে প্রশাসন। ফলে ২৫ জানুয়ারি চিনা নববর্ষের অনুষ্ঠান বন্ধ।
আশঙ্কা চিন থেকে দ্রুত এই ভাইরাস সংক্রমণ বিশ্ব জুড়ে দ্রুত ছড়াবে। কারণ, হুবেই প্রদেশের সঙ্গেবিভিন্ন দেশের বিমান যোগাযোগ রয়েছে। হুবেই প্রদেশ থেকে কমবেশি ২৯টি প্রদেশে ছড়িয়েছে করোনা ভাইরাস।

এদিকে হুবেই থেকে সরাসরি ইউরোপ ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন শহরের বিমান যোগাযোগ। এছাড়া, দক্ষিণ কোরিয়ার সিওল, থাইল্যান্ডের ব্যাংকক, মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুর আর সিঙ্গাপুর সরাসরি যাতায়াত করেন বহু যাত্রী। ফলে সংশ্লিষ্ট দেশগুলির সরকারও আতঙ্কিত।

বিবিসি জানাচ্ছে, করোনা ভাইরাস চিনের বাইরেও ছড়িয়ে পড়েছে। জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, থাইল্যান্ড, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, সিঙ্গাপুর, ভিয়েতনাম, তাইওয়ান, নেপাল, ফ্রান্স ও সৌদি আরব সহ অন্তত ১১টি দেশে ছড়িয়েছে। অনেক ভারতীয় আক্রান্ত করোনায়।

করোনা ভাইরাস কী? করোনা ভাইরাসের অপর নাম ২০১৯-এনসিওভি। ভাইরাসটির অনেক রকম প্রজাতি আছে। এর মধ্যে মাত্র ৭টি প্রজাত মানুষের দেহে সংক্রমিত হতে পারে।

সার্স ছিল একরকম করোনা ভাইরাস: ২০১২ সালে সার্স ভাইরাস সংক্রমণে ৮০০জনের মৃত্যু হয়েছিল। এটিও এক ধরনের করোনা ভাইরাস। এতে আক্রান্ত হয়েছিল ৮ হাজারের বেশি মানুষ।

করোনা ভাইরাসের লক্ষ্মণ- করোনা ভাইরাস সংক্রমণের প্রধান লক্ষণ হলো, শ্বাস নিতে কষ্ট হওয়া, জ্বর এবং কাশি। বিজ্ঞানীরা বলছেন, প্রথম লক্ষণ হচ্ছে জ্বর। তারপর দেখা দেয় শুকনো কাশি। এক সপ্তাহের মধ্যে শ্বাসকষ্ট দেখা দেয়।

কীভাবে ছড়িয়েছে এই ভাইরাস- মধ্য চিনের উহান শহরে কীভাবে করোনার সংক্রমণ শুরু হয়েছিল, তা এখনও নিশ্চিত করতে পারেননি বিশেষজ্ঞরা। সম্ভবত কোনও প্রাণী এর উৎস। কিন্তু সেই প্রাণীর পরিচয় জানা যায়নি। ছিল। এর আগে সার্স ভাইরাসের ক্ষেত্রে সংক্রমণ ছড়ায় প্রথমে বাদুড় থেকে। তবে মার্স ভাইরাস ছড়িয়েছিল উট থেকে।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ