চণ্ডীগড়: দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজ দিয়ে ঘরোয়া মরশুম শুরু করছে ভারত৷ রবিবার বৃষ্টির জন্য টি-২০ সিরিজের প্রথম ম্যাচ পরিত্যক্ত হওয়ায় বিরাট-রাবাদা লড়াই এখনও শুরু হয়নি৷ বুধবার মোহালিতে দ্বিতীয় ম্যাচ৷

কাগিসো রাবাদার আগুনে বোলিং না, বিরাটের আক্রমণাত্মক ব্যাটিং! ভারত-প্রোটিয়া সিরিজের ইউএসপি কী? এই প্রশ্নের উত্তরের অপেক্ষায় ক্রিকেটপ্রেমীরা। রবিবার সিরিজের প্রথম ম্যাচ বৃষ্টিতে পণ্ড হওয়ায় অপেক্ষা আরও বেড়েছে৷ ২০২০ অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে টি-২০ বিশ্বকাপের প্রথম প্রস্তুতি হিসেবে এই সিরিজকে দেখছে ভারতীয় থিঙ্কট্যাঙ্ক৷

ভারত সফরে দক্ষিণ আফ্রিকার নতুন টি-২০ অধিনায়ক কুইন্টন ডি’ কক৷ ব্যাট-বলে বিরাট-রাবাদার লড়াই দেখতে মুখিয়ে রয়েছেন নবনির্বাচিত প্রোটিয়া অধিনায়ক। সিরিজের দ্বিতীয় টি-২০ ম্যাচে আগে সাংবাদিক বৈঠকে ডি’কক বলেন,‘ওরা দু’জনেই দারুণ ক্রিকেটার। লড়াইটা দারুণ জমবে। বিরাট ও রাবাদা দু’জনেই ইতিবাচক ক্রিকেট খেলে।’

বিশ্বকাপে জঘন্য পারফরম্যান্সের পর প্রথমবার সিরিজ খেলতে নামছে দক্ষিণ আফ্রিকা৷ আগামী বছর টি-২০ বিশ্বকাপের কথা মাথায় রেখে প্রতিটি দলই পরীক্ষা নিরীক্ষার পথে হাঁটছে৷ নেতৃত্বে বদল এনেছে দক্ষিণ আফ্রিকা৷ ফ্যাফ ডু’প্লেসির পরিবর্তে সংক্ষিপ্ত ফর্ম্যাটে ডি’ককের হাতে নেতৃত্ব তুলে দিয়েছেন প্রোটিয়া নির্বাচকরা৷

নেতৃত্ব প্রসঙ্গে প্রোটিয়া উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান বলেন, ‘নেতৃত্ব নিয়ে আমি খুব একটা চিন্তিত নয়৷ তবে এটা আমার কেরিয়ারে নতুন অধ্যায়৷ অতিরিক্ত দায়িত্ব নিতে হবে৷ জানি না এটা আমার খেলায় ইতিবাচক না নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে৷’ নিয়মিত আইপিএলে খেলেন ডি’কক৷ গত আইপিএলে মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের চ্যাম্পিয়ন দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন এই প্রোটিয়া উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান৷

মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের হয়ে আইপিএল চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পরে ডি’ কক বলেছিলেন, এটা তাঁর জীবনের সব চেয়ে বড় সাফল্য। দক্ষিণ আফ্রিকার টি-২০ অধিনায়ক এদিন বলেন, ‘মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের হয়ে আইপিএল জেতা আমার কেরিয়ারের অন্যতম সেরা ঘটনা। আমরা যদি বিশ্বকাপ জিততাম, তা হলে সেটা হত আরও বড় একটা ঘটনা। বিশ্বকাপ ও আইপিএল ফাইনালে খেলা প্রতিটি ক্রিকেটারের স্বপ্ন। সুতরাং আইপিএল জয় এখনও পর্যন্ত আমার জীবনের সব থেকে বড় সাফল্য।’

ধরশালায় প্রথম টি-২০ বৃষ্টিতে ধুয়ে যাওয়ায় সিরিজ হয়ে দাঁড়িয়েছে কার্যত দুই ম্যাচের৷ এ প্রসঙ্গে প্রোটিয়া ক্যাপ্টেনের বক্তব্য, ‘ধরশালার প্রথম টি-২০ ম্যাচ না-হওয়ায় সিরিজ এখন দু’ম্যাচের৷ কিন্তু আমরা ভারতের মাটিতে তিন ম্যাচের টি-২০ ম্যাচই খেলতে চেয়েছিলাম। কিন্তু, কীই-বা করা যাবে।’

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.