দুবাই: বিরাট কোহলির হলটা কী? আইপিএলে তৃতীয় ম্যাচ খেলা হয়ে গেলেও বিরাটের ব্যাটে ফ্লপ-শো চলছেই। প্রথম ম্যাচে সানরাইজার্সের বিরুদ্ধে ১৪, দ্বিতীয় ম্যাচে কিংস ইলেভেনের বিরুদ্ধে ১ রানের পর দুবাইয়ে সোমবার মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের বিরুদ্ধে মাত্র ৩ রানে ফিরলেন বিরাট কোহলি। শুধু তাই নয়, দুই ওপেনার শুরুটা দারুণ করার পর ইনিংসের গুরুত্বপূর্ণ সময়ে নেমে মূল্যাবন ১১টি বল খরচ করলেন ভারতীয় ক্রিকেটের রানমেশিন।

আইপিএলে বিরাটের ব্যাটে এমন কদর্য পারফরম্যান্স শেষ কবে হয়েছে, মনে করতে পারছেন না অনুরাগীরা। পঞ্জাব ম্যাচ চলাকালীন বিরাট কোহলির পারফরম্যান্স নিয়ে বলতে গিয়ে সুনীল গাভাসকরের একটি মন্তব্য নিয়ে শোরগোল পড়ে গিয়েছিল। কিংবদন্তি বিরাটের ব্যাটিং ব্যর্থতা নিয়ে বলতে গিয়ে স্ত্রী অনুষ্কাকে টেনে এনেছিলেন। গাভাসকর জানিয়েছিলেন লকডাউনে কেবল অনুষ্কার বোলিং প্র্যাকটিস করেছেন বিরাট। অর্থাৎ লকডাউনে অনুশীলন না করা ক্রিকেটারদের পক্ষে দীর্ঘদিন পর মাঠে নেমে নিজেদের মেলে ধরতে যে অসুবিধা হচ্ছে সেটা বোঝাতেই এমন মন্তব্যের অবতারণা করেছিলেন গাভাসকর।

কিন্তু পেশাদার ক্রিকেটার এবং বিশ্বের সেরা ব্যাটসম্যান হিসেবে বিরাটের ফর্মে ফেরার এই যে লম্বা প্রক্রিয়া সেটা কিন্তু মেনে নিচ্ছেন না অনুরাগীরা। স্বাভাবিকভাবেই মুম্বইয়ের বিরুদ্ধে ব্যাট হাতে ব্যর্থ হওয়ার পর বাঁধ ভাঙল অনুরাগীদের। সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যাপক ট্রোলড হতে হল আরসিবি অধিনায়ককে। এদিন নবম ওভারের শেষ বলে অ্যারন ফিঞ্চ আউট হওয়ার পর ব্যাট হাতে নামেন বিরাট। কিন্তু ক্রিজে নামার পর থেকে যে ১০টি বল তিনি ফেস করেন তাতে ব্যাটে আস্ফালন তো দূরে থাক বরং অনেক বেশি জবুথুবু দেখাচ্ছিল বিরাটকে। অনুরাগীরা প্রত্যাশা করছিলেন বিরাটের ব্যাটে ঝড় উঠবে। কিন্তু না, ত্রয়োদশ ওভারে রাহুল চাহালের লেগ স্পিনে ঠকে যান বিরাট। নির্বিষ একটি শট কভারে দাঁড়ানো রোহিত শর্মার হাতে ক্যাচিং প্রাকটিসের ঢং’য়ে তুলে দিয়ে ডাগআউটে ফেরেন ভারত অধিনায়ক।

সব দেখেশুনে সোশ্যাল মিডিয়ায় হতাশ অনুরাগীরা বলছেন, ‘বিরাট তুমি প্রয়োজনে বিশ্রাম নাও, কিন্তু আত্মসম্মান নিয়ে এভাবে ছেলেখেলা করো না।’ কেউ আবার লিখেছেন, ‘আমি আমার পুরনো বিরাটকে ফেরত চাই। তোমার জন্যই আরসিবি’কে সমর্থন করা। নইলে আরসিবি’কে সমর্থনের কোনও কারণ নেই।’ এক অনুরাগী আবার বিরাটের শেষ ৮টি আইপিএল ইনিংসের পরিসংখ্যান তুলে ধরে লিখেছেন, ‘গত ৮ ইনিংসে ২৫ রান পেরোতে ব্যর্থ বিরাট।’

যদিও কঠিন সময় প্রাক্তন ইংরেজ তারকা ব্যাটসম্যান কেভিন পিটারসনকে পাশে পেয়েছেন বিরাট। কেপি জানিয়েছেন, ‘এটা একজন ক্রীড়াবিদের জীবনের অঙ্গ।’ উল্লেখ্য, বিরাট ব্যর্থ হলেও দুই ওপেনার অ্যারন ফিঞ্চ ও দেবদূর পারিক্কল এবং পরে এবি ডি’ভিলিয়ার্সের ঝোড়ো অর্ধশতরানে ভর করে মুম্বইকে ২০২ রানের টার্গেট দেয় ব্যাঙ্গালোর। ৩৫ বলে ৫২ রান আসে ফিঞ্চের ব্যাট থেকে। ৪০ বলে ৫৪ রান করেন দেবদূত। শেষদিকে ৪টি চার এবং ৪টি ছয়ে ২৪ বলে ৫৫ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলে দলের রান দু’শোর গন্ডি ছুঁয়ে দেন এবি। ১টি চার এবং ৩টি ছয়ে ১০ বলে ২৭ রানের ক্যামিও আসে শিবম দুবের ব্যাট থেকেও।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।