দুবাই: ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ঘরের মাঠে নামার আগে টিম ইন্ডিয়ার ভাইস-ক্যাপ্টেন অজিঙ্ক রাহনে ও টেস্ট স্পেশালিস্ট চেতেশ্বর পূজারা আইসিসি টেস্ট ব়্যাংকিংয়ে এগোলেন৷ তবে চার নম্বরেই রয়েছেন ক্যাপ্টেন বিরাট কোহিল৷

৫ ফেব্রুয়ারি ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে চার টেস্টের সিরিজ শুরু করছে ভারত৷ কিন্তু তার আগে অস্ট্রেলিয়া সফরে ভালো পারফরম্যান্সের পুরস্কার পেলেন পূজারা ও রাহানে৷ কোহলির অনুপস্থিতিতে অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে টেস্ট সিরিজ জয়ের বড় ভূমিকা নিয়েছিলেন টিম ইন্ডিয়ার এই দুই সিনিয়র ব্যাটসম্যান৷ তারই পুরস্কার পেলেন রাহানে ও পূজারা৷

পাকিস্তানের টেস্টে অধিনায়ক বাবর আজমকে পিছনে ফেলে উপরে উঠে এলেন পূজারা৷ ৭৬০ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে ছ’ নম্বরে রয়েছেন ভারতের নম্বর তিন টেস্ট ব্যাটসম্যান৷ অস্ট্রেলিয়ায় ভারতের ২-১ টেস্ট সিরিজ জয়ে বড় ভূমিকা ছিল পূজারা৷ তিনটি হাফ-সেঞ্চুরিসহ ২৭১ রান করেছিলেন তিনি৷ ভারতীয়দের মধ্যে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান এসেছিল তাঁর ব্যাট থেকে৷ ৯২৮টি ডেলিভারি খেলে ভারতের সিরিজ জয়ে বড় অবদান রাখেন তিনি৷

এক ধাপ এগিয়েছেন কোহলির ডেপুটি রাহানে৷ ৭৪৮ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে ৮ নম্বরে রয়েছেন তিনি৷ মেলবোর্নে বক্সিং ডে টেস্টে সেঞ্চুরি করে ভারতের সিরিজে সমতা ফেরাতে বড় ভূমিকা নিয়েছিলেন ক্যাপ্টেন রাহানে৷ কোহলির অনুপস্থিতিতে দলকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন মুম্বইয়ের এই ডানহাতি৷

৮৬২ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে চার নম্বরে রয়েছেন কোহলি৷ অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে চার টেস্টের সিরিজে মাত্র একটি টেস্ট খেলেছিলেন৷ পিতৃত্বকালীন ছুটি নিয়ে অ্যাডিলেডে প্রথম টেস্টের পর দেশে ফিরেছিলেন কোহলি৷ ফলে সিরিজের বাকি তিনটি টেস্ট খেলেননি ভারত অধিনায়ক৷ তবে নিজের জায়গা ধরে রেখেছেন তিনি৷ তবে শীর্ষস্থান ধরে রেখেছেন কিউয়ি অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন৷ ৯১৯ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে এক নম্বরে রয়েছেন তিনি৷ আর দুই ও তিন নম্বরে রয়েছেন দুই অজি ব্যাটসম্যান স্টিভ স্মিথ (৮৯১) এবং মার্নাস ল্যাবুশানে (৮৭৮)৷ পাঁচ নম্বরে রয়েছেন ইংল্যান্ড অধিনায়ক জো রুট (৮২৩)৷

বোলারদের মধ্যে প্রথম দশে রয়েছেন দুই ভারতীয়৷ রবিচন্দ্রন অশ্বিন ৭৬০ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে আট নম্বরে রয়েছেন৷ আর জসপ্রীত বুমরাহ ৭৫৭ পয়েন্ট ন’ নম্বরে রয়েছেন৷ তবে এক নম্বর জায়গাটা দীর্ঘদিন ধরে রেখেছেন অজি পেসার প্যাট কামিন্স৷ ৯০৮ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষস্থানে রয়েছেন তিনি৷ ৮৩৯ পয়েন্ট নিয়ে দু’ নম্বরে রয়েছেন ইংল্যান্ড পেসার স্টুয়ার্ট ব্রড৷ তিন নম্বরে রয়েছেন কিউয়ি পেসার নেল ওয়াগনার (৮৩৫)৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.