মুম্বই: ম্যাঞ্চেস্টারে পাকিস্তানকে হারিয়ে বিশ্বকাপে বিরাট সম্ভাবনা জাগলেও ওল্ড ট্র্যাফোর্ডেই শেষ হয়ে যায় ভারতের স্বপ্ন৷ সেমিফাইনালে নিউজিল্যান্ডের কাছে হেরে বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নেয় টিম ইন্ডিয়া৷ বিশ্বকাপে ভারতীয় দলের পারফরম্যান্সের ময়নাতদন্ত ও আগামী বছর টি-২০ বিশ্বকাপের রোড-ম্যাপ তৈরি করতে ক্যাপ্টেন কোহলি ও কোচ শাস্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে বসতে চলেছে সুপ্রিম কোর্ট নিযুক্ত কমিটি অফ অ্যাডমিনিস্ট্রেটর (সিওএ)৷

লিগে এক নম্বরে শেষ করলেও কিউয়িদের বিরুদ্ধে সেমিফাইনালে থেমে যায় বিরাটদের বিশ্বকাপ অভিযান৷ অর্থাৎ ২০১৫ পর ২০১৯ বিশ্বকাপের সেমিফাইনালেও থেমে যায় ‘মেন ইন ব্লু’র চ্যালেঞ্জ৷ তবে ২০১৯ বিশ্বকাপকে অতীত ভেবে সামনে তাকাতে চায় বিসিসিআই৷ ২০২০ অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে টি-২০ বিশ্বকাপের রোড-ম্যাপ নিয়ে আলোচনা করতে চায় সিওএ৷

পিটিআই-কে সিওএ-র প্রধান বিনোদ রাই জানান, ‘আমরা অবশ্যই ক্যাপ্টেন ও কোচের সঙ্গে বিশ্বকাপের পর্য়ালোচনা করব৷ তবে কবে সেই বৈঠক হবে, এখনই তা বলতে পারব না৷ পাশাপাশি নির্বাচন কমিটির প্রধান কে হবে এবং নির্বাচন কমিটি কীভাবে চলবে তা নিয়েও আলোচনা হবে৷’ সেমিফাইনাল হেরে বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিলেও এখনও দেশের ফেরার বিমান ধরেনি টিম ইন্ডিয়ার ক্রিকেটাররা৷ রবিবার মুম্বইয়ের বিমান ধরবে কোহলি অ্যান্ড কোং৷

মনে করা হচ্ছে, দল নির্বাচন নিয়েও ক্যাপ্টেন কোহলি ও কোচ শাস্ত্রীকে প্রশ্ন করা হতে পারে৷ প্রশ্ন করা হতে পারে নির্বাচন কমিটির প্রধান এমএসকে প্রসাদকেও৷ শিখর ধাওয়ান ও বিজয় শংকর চোট পেয়ে বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে যাওয়ার পরও অম্বাতি রায়ডুকে দলে না-নিয়ে ঋষভ পন্ত ও ময়াঙ্ক আগরওয়ালকে ইংল্যান্ডে নিয়ে উড়িয়ে নিয়ে যাওয়া হয়৷ বিশ্বকাপে রিজার্ভ প্লেয়ার হিসেবে থাকা সত্ত্বেও বিজয় ছিটকে যাওয়ার পর রায়ডুকে না-নিয়ে ময়াঙ্ককে ইংল্যান্ডে উড়িয়ে নিয়ে যাওয়া নিয়েও প্রশ্ন ওঠে৷ বিশ্বকাপে সুযোগ না-পাওয়ার হতাশায় আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর নিয়ে নেন রায়ডু৷

রায়ডুকে দলে না-নেওয়ার পাশাপাশি বেশ কয়েকটি ম্যাচে একাদশে তিনটি উইকেটকিপার ব্যাটসম্যানকে (মহেন্দ্র সিং ধোনি, ঋষভ পন্ত ও দীনেশ কার্তিক) রাখা নিয়েও প্রশ্ন ওঠে৷ দীর্ঘদিন ওয়ান ডে না-খেলা ও দ্বাদশ আইপিএলে অফ-ফর্মে থাকা কার্তিককে খেলানো নিয়ে আগেই প্রশ্ন উঠেছিল৷ সেমিফাইনালের মতো গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে কেদাব যাদবের পরিবর্তে কার্তিকে খেলানোয় সমালোচনা কম হয়নি৷ পাশাপাশি ম্যাঞ্চেস্টার সেমিফাইনালে ধোনির ব্যাটিং পজিশন নিয়েও প্রশ্ন উঠতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে৷