দুবাই: বাইশ গজে বিরাট কোহলির ফিল্ডিং দক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন তোলার অবকাশ নেই এমনিতে। বিশ্ব ক্রিকেটে সেরা ফিল্ডারদের মধ্যে অন্যতম হিসেবে বিবেচিত হন ভারত অধিনায়ক। কিন্তু বৃহস্পতিবার আইপিএলের দ্বিতীয় ম্যাচে কেএল রাহুলের জোড়া ক্যাচ মিস করে হঠাতই ‘ভিলেন’ আরসিবি অধিনায়ক।

তার জোড়া ক্যাচ মিসের ফায়দা তুলে এদিন দুবাই স্টেডিয়ামে আইপিএল কেরিয়ারের দ্বিতীয় শতরানটি পূর্ণ করেন পঞ্জাব অধিনায়ক কেএল রাহুল। শুধু তাই নয় আইপিএলে ভারতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে একইসঙ্গে অধিনায়ক হিসেবে সর্বোচ্চ রানের ইনিংসটি খেলেন দক্ষিণী ক্রিকেটার।

এরপর ব্যাট হাতে যখন নিজেকে প্রমাণ করার ছিল তখন মাত্র ১ রানে দায়িত্বজ্ঞানহীন শট খেলে ডাগআউটে ফেরেন কোহলি। প্রথমে ব্যাট করে রাহুলের ৬৯ বলে অপরাজিত ১৩২ রানের ইনিংসে ভর করে স্কোরবোর্ডে ২০৬ রান তোলে কিংস ইলেভেন। প্রত্যুত্তরে আরসিবির তারকাখোচিত ব্যাটিং লাইন আপ ধসে যায় মাত্র ১০৯ রানে।

ম্যাচ হেরে হতাশ কোহলি জানান, এদিন কিছুই পরিকল্পনামাফিক হয়নি তাঁর দলেন। একইসঙ্গে নিজেকে কাঠগড়ায় তুলে আরসিবি অধিনায়ক জানান, দলকে তাঁর সামনে থেকে নেতৃত্ব দেওয়া উচিৎ ছিল। ম্যাচের পর কোহলি তথা আরসিবির সেই হতাশা দ্বিগুণ হল স্লো ওভার-রেটের কারণে।

কিংস ইলেভেন পঞ্জাবের বিরুদ্ধে আরসিবির স্লো ওভার-রেটের দায় এসে পড়েছে অধিনায়কের কাঁধে। আইপিএলের আচরণ বিধি লঙ্ঘিত হওয়ার কোহলিকে ১২ লক্ষ টাকা জরিমানা করা হল। স্বাভাবিকভাবেই যা কাটা ঘায়ে নুনের ছিটের মতো যোগ হয়েছে।

ম্যাচের পর পুরস্কার বিতরণীতে এদিন কোহলি বলেন, ‘আমার বোলাররা বল হাতে মাঝের ওভারগুলোতে যথেষ্ট সপ্রতিভ ছিল। সামনে দাঁড়িয়ে এই হারের দায় আমাকেই নিতে হবে।’ একইসঙ্গে আরসিবি অধিনায়ক জানান তাঁর ক্যাচ নষ্টের জন্য দলের অতিরিক্ত ৩০-৪০ রান খরচ হয়েছে।

কোহলির কথায়, ‘আমরা যদি ওদের ১৮০ রানের মধ্যে বেঁধে রাখতে পারতাম তাহলে ব্যাটিংয়ে শুরু থেকে এতোটা চাপ আসত না। এমন একেকটা দিন আসে যেদিন কোনও কিছু পরিকল্পনামাফিক হয় না।

এগুলো মেনে নেওয়া ছাড়া উপায় নেই। আমাদের এই ভুলগুলো থেকে শিক্ষা নিতে হবে। যেমনটা বললাম ওই দুটি সুযোগের ক্ষেত্রে আমার সামনে থেকে দলকে নেতৃত্ব দেওয়া উচিৎ ছিল, এমনকি পরে ব্যাট হাতেও। আমাদের উচিৎ ছিল চাপকে ছুঁড়ে ফেলে দেওয়া। কিন্তু আমরা পারিনি।’

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।