মুম্বই: স্বপ্ন যে তার এভাবে বাস্তব রূপ নেবে হয়তো তিনি নিজেও ভাবতে পারেননি৷ ভাইরাল হওয়া গায়িকা রানু মণ্ডল প্রথম গান গাইলেন হিমেশ রেশমিয়ার সঙ্গে। রানাঘাটের ভাইরাল হওয়া সেই রানু দেখিয়ে দিলেন গুন থাকলে তার কদর পাওয়া যায়। দেখিয়ে দিলেন ভাগ্য বদলাতে বেশি সময় লাগে না যদি সত্যি প্রতিভা থেকে থাকে।

গায়ক ইমেশ রেশমিয়া তাঁর ট্যুইটারে রেকর্ডিঙের ভিডিও শেয়ার করে লিখেছেন তাঁর নিজের ছবি হ্যাপি হার্ডির জন্য গানের রেকর্ডিং করালেন তিনি। ছবিতে অভিনয় করেছেন হিমেশ নিজেই। আর সেই ছবিতে প্লে ব্যাক করছেন রানু।

রানাঘাটের স্টেশনে ভিক্ষে করা থেকে আজকের এই রাস্তা তাঁর কাছে স্বপ্নের থেকে কম কিছু নয়। তাঁর গানের একটি ভিডিও ছড়িয়ে পড়তেই রাতারাতি অনেকের নজরে চলে আসেন তিনি।

তারপর থেকে ভারত ও বাংলাদেশ থেকে অনেক অফার আসতে থাকে। এমনকি একটি রিয়্যালিটি শো থেকেও ডাক পান তিনি। কিন্তু পরিচয় পত্র না থাকার কারনে সমস্যা হতে শুরু করে।

মুম্বইয়ের বাবুল মণ্ডলের সঙ্গে বিয়ে হয়েছিল রানু মণ্ডলের। স্বামী মারা যাওয়ার পর রানাঘাটে ফিরে আসেন তিনি। রেলস্টেশনে ঘুরে ঘুরেই গান গাইতেন। তারপর তাঁর গাওয়া গানের ভিডিয়ো ভাইরাল হয়ে যায় ফেসবুকে। এবার স্টেশন থেকে সেই রানু সোজা পৌঁছে গেলেন মুম্বইয়ের গান রেকর্ডিং স্টুডিয়োয়।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।