নিউজ ডেস্ক, কলকাতা: বাংলায় ভোট মানেই হিংসার ছবি৷ গত পঞ্চায়েতে যার চরম প্রকাশ ঘটে৷ এবারের লোকসভাতেও দু’টি পর্যায় মিলিয়ে মোট পাঁচটি কেন্দ্রে ভোট হয়ে গিয়েছে৷ বদলায়নি ছবি৷ ঘটেছে হানাহানি, রক্তপাত৷ পশ্চিমবঙ্গের এই পরিস্থিতি কাশ্মীরের থেকেও ভয়াবহ বলে জানালেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী৷

সর্বভারতীয় বৈদ্যুতিন সংবাদ মাধ্যামকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বাংলায় ভোট পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন মোদী৷ তিনি বলেন, ‘‘যেভাবে হিংসার দিকে এগিয়ে চলেছে বাংলা এবং উৎসাহ দেওয়া হচ্ছে তা কাশ্মীরের ৮০-র দশকে হিন্দু পণ্ডিতদের সঙ্গে হওয়া ঘটনাকে মনে করিয়ে দেয়৷ পরিস্থিতি ভয়াবহ৷ গুরুত্ব দিয়ে বিবেচনা করা উচিত৷’’

জম্মু-কাশ্মীরের সঙ্গে এদিন বাংলার তুলনা করেন প্রদানমন্ত্রী৷ উদাহরণ দিয়ে তিনি বলেন, ‘‘গোটা দেশের প্রায় অর্ধেক আসনে ভোট হয়ে গিয়েছে৷ জম্মু-কাশ্মীরের পরিস্থিতি উদ্বেগের হলেও সেখান থেকে হিংসার খবর আসেনি৷ সম্প্রতি হয়ে যাওয়া পঞ্চায়ে ভোটও হয়েছে শান্তিপূর্ণ৷ কিন্তু বাংলার কথা বলার নয়৷’’

আরও পড়ুন: কলকাতাকে মধ্যমণি করে বাংলাই পথ দেখাবে গোটা দেশকে: প্রধানমন্ত্রী

মোদীর ব্যাখ্যায়, ‘‘বাংলায় বিরোধীদের ভয় পাওয়ানোর জন্য শাসক দল বিজেপির এক কর্মীকে মেরে ঝুলিয়ে দিয়েছে৷ অসহনীয় পরিস্থিতি৷’’ এইভাবে চলতে পারে না৷

আরও পড়ুন: মুর্শিদাবাদে কংগ্রেস তৈরি করেছি আমিই, দাবি মুখ্যমন্ত্রীর

২০১৮ সালের পঞ্চায়েত ভোটে মনোনয়ন দেওয়া থেকে বোর্ড গঠন৷ প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত হিংসা, মৃত্যু, রক্তপাত দেখেছে রাজ্য৷ বিরোধীদের নিশানায় ছিল শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস৷ রাজ্যের নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে রাজ্যের শাসক দলের হয়ে কাজের অভিযোগ তোলে বিরোধী শিবির৷ বাম আমলেও একই অভিযোগ সাসক ফ্রন্টের বিরুদ্ধে তোলা হত তৃণমূলের পক্ষ থেকে৷ রাজ্যপাটে বদল হলেও সংস্কৃতির পরিবর্তন হয়নি৷

১৯শের লোকসভাবার প্রথম দু’দফাতেও ঠেকানো যায়নি মারামারি৷ দু’দলের কর্মীদের মধ্যে গন্ডগোল, বিরোধী এজেন্টকে বুতে বসতে না দেওয়া, ভোটারদের বুথ পর্যন্ত যেতে বাধা দেওয়া মতো ঘটনা এবারও ঘটেছে৷ ছাড় পাননি প্রার্থীরাও৷ তার মাঝেই মর্মান্তিক খবর পুরুলিয়ায় বিজেপি কর্মীর দেহ উদ্ধার৷ সরব রাজ্যের বিজেপি নেতারা৷
প্রধানমন্ত্রীর কথায় জম্মু-কাশ্মীরের কতা সংবাদ মাধ্যমে ধরা পড়ে৷ কিন্তু বাংলায় হিংসার ছবি খবরে আসে না সবসময়৷ কারণ সেখানে পৌঁছনোই যায় না৷

রাজনৈতিক মহলের মতে রাজ্যের হিংসার ঘটনাকে কাশ্মীরের সঙ্গে তুলনা আসলে ভোটের আগে মমতা সরকারকে বিঁধলেন মোদী৷