চিকমাগালুর: কর্ণাটকের চিকমাগালুরে প্রতিদিন জীবন বাজি রেখেই মানুষকে নিত্য দিনের কাজ সারতে হচ্ছে৷ সেখানে বসবাসকারী প্রত্যেকে যাদের এপার থেকে ওপারে যেতে হয় তাদের কাছে এছাড়া আর কোনও উপায় নেই৷ এমনকি কর্ণাটকের ছাত্র ছাত্রীরাও স্কুলে যেতে বাধ্য হচ্ছে এই ভাঙা ব্রিজ পার করেই৷

নদী পার করার এই একটিই মাত্র উপায়৷ কিন্তু তাও জরাজীর্ণ অবস্থায় পড়ে রয়েছে৷ গ্রামের বাসিন্দারা কাঠের সেই ভাঙা পাটাতনের ওপর দিয়েই দোকান বাজার যাওয়া বা নিত্যদিনের প্রয়োজনীয় কাজ করে চলেছেন৷ যখন তখন পুরোপুরি ভেঙে পড়তে পারে এই ব্রিজ৷ আর তেমনটা ঘটলে তা ভয়াবহ দুর্ঘটনা ঘটাবে৷

এদিকে বর্ষা কাল চলছে৷ ভারী বৃষ্টির কারণে ব্রিজের অবস্থা আরও খারাপ হয়েছে৷ এসময় নদী উপচে পড়ছে জলে৷ তার মধ্যেই গ্রামের মানুষ নৌকায় করেও পার হচ্ছেন৷ বর্ষার কারণেই স্বাভাবিক ভাবেই জলস্তর বেড়ে যায় এই নদীর৷ ফলে জীবনের ঝুঁকি আরও বেড়ে যায়৷ বর্ষার সময় প্রবল বৃষ্টির জন্য কর্ণাটকের নদী বাঁধও উপচে পড়েছে৷

বেশ কয়েকদিন ধরেই এ রাজ্যে চলছে তুমুল বৃষ্টিপাত৷ তার ফলেই বেশ কিছু এলাকা পঙ্গু হয়ে পড়েছে৷ স্বাভাবিক জনজীবন বিপন্ন বিভিন্ন এলাকায়৷ সম্প্রতি চিকমাগালুরের অবস্থা খুবই খারাপের দিকে মোড় নিয়েছে৷ শ্রিঙ্গেরি, বালেহোন্নুর, নরসিমহারাজাপুরা, মুদিগেরে, কুধ্রেমুখ ও কোপ্পার অবস্থা বেশ খারাপ৷