কল্যাণী: বিজয় হাজারেতে রীতিমতো ব্যাকফুটে ছিল মহেন্দ্র সিং ধোনির ঝাড়খণ্ড৷অবনমনের খাঁড়া ঝুলছিল মাথার উপরে৷সোমবার কল্যাণীতে পারভেজ রসুলদের জম্মু ও কাশ্মীরের বিরুদ্ধে ডু-অর-ডাই ম্যাচ ছিল ধোনিদের কাছে৷শুধু জিতলেই হত না৷ শর্ত ছিল বড় ব্যবধানের জয়তেই শেষ আটের রাস্তা খুলবে মাহিদের৷

এদিন বেঙ্গল ক্রিকেট অ্যকাডেমি গ্রাউন্ডে ধোনিরা জিতলেন ছ’উইকেটে৷চলে গেলেন বিজয় হাজারের কোয়ার্টার ফাইনালে৷এদিন কল্যাণীতে ধোনি..ধোনি… শব্দব্রক্ষে কাঁপছিল মাঠ৷ধোনিও তাঁর সমর্থকদের ভরপুর আনন্দ দিলেন৷বিশ্ব ক্রিকেটের অন্যতম সেরা ম্যাচ ‘ফিনিশার’ বলা হয় তাঁকে৷বিজয় হাজারেতেও সেই একই মেজাজে পাওয়া গেল তাঁকে৷

এদিন ধোনি টস জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন৷ওয়েশ শাহ (৫৯) ও পারভেজ রসুলের (৪৫) ব্যাটে ১৮৪ রানে শেষ হয় যায় জম্মু-কাশ্মীর৷৪৩ ওভারেই ঝাড়খণ্ডকে গুটিয়ে যায়৷সৌজন্যে শাহবাজ নাদিমের দুর্দান্ত বোলিং৷১০ ওভার বল করে একাই পাঁচ উইকেট তুলে নিলেন তিনি৷দিলেন ৪২ রান৷বরুণ অ্যারন, রাহুল শুক্লারা পেলেন একটি করে উইকেট৷কৌশল সিং পেয়েছেন দু’উইকেট৷

জবাবে ধোনির দল ছ’উইকেট বাকি থাকতেই ৩৫ ওভারে ম্যাচ পকেটে পুরে নেয়৷ঝাড়খণ্ডের হয়ে কুমার দেওব্রাত করলেন সর্বোচ্চ ৭৮ রান৷তবে ১৯ বলে অপরাজিত ১৭ রান করেই মাহি বুঝিয়ে দিলেন যে, এখনও তিনি কতটা ভয়ঙ্কর৷ধোনির হাত থেকে দু’টি চার ও একটি ছয় ছিল দেখার মতো৷