ক্রাইশ্চচার্চ: হ্যাগলে ওভালের বাইশ গজ গ্রিন টপ হলে কী হবে, উইকেটে কোনরকম জুজু ছিল না। ভারতের স্বল্প রানে গুটিয়ে যাওয়ার পিছনে যত না কৃতিত্ব কিউয়ি বোলারদের, তার চেয়ে অনেক বেশি দায়ী ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের দুর্বল শট নির্বাচন। সাফ জানালেন প্রথম ইনিংসে ভারতের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক হনুমা বিহারী।

ভারতীয়-‘এ’ দলের হয়ে দিনকয়েক আগে ক্রাইশ্চচার্চেই ঝকঝকে শতরান হাঁকিয়েছিলেন বিহারী। সেই অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে শনিবার চেতেশ্বর পূজারার সঙ্গে পঞ্চম উইকেটে তার জুটিটা একটু একটু করে ভালোই লম্বা হচ্ছিল। কিন্তু চা-বিরতির আগেই ছন্দপতন। ব্যক্তিগত ৫৫ রানে বিহারী উইকেট ছুঁড়ে দিয়ে আসতেই ভারতের বড় রানের স্বপ্ন ধূলোয় মিশিয়ে গেল। পূজারা যাতে তাঁর স্বাভাবিক খেলাটা খেলতে পারেন তাই অপরদিকে বিপক্ষ বোলারদের আক্রমণের পথ বেছে নিয়েছিলেন বিহারী।

কিন্তু চা-বিরতির ঠিক আগেই একটা খারাপ শট এলোমেলো করে দিল সব হিসেব-নিকেশ। তাই প্রথমদিন খেলার শেষে আক্ষেপ নিয়েই হনুমা জানালেন, ‘আমরা পিচে যতটা জুজু আশা করেছিলাম, পিচে আদৌ তেমন কিছু ছিল না।’ তাই কিউয়ি বোলারদের প্রশংসা করেও দলের ব্যাটসম্যানদের খারাপ সময় খারাপ শট খেলে আউট হওয়ার বিষয়টিকেই কাঠগড়ায় তুললেন এই মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান।

বিহারীর বিশ্লেষণ, ‘ওরা সঠিক জায়গায় বল করে গিয়েছে। পৃথ্বী ছন্দটা ধরিয়ে দিয়েছিল। পূজারাও ক্রিজে বেশ অনেকটা সময় কাটাল। কিন্তু আউটগুলো সব ভুল সময় হলাম আমরা। আর কোনও আউটের পিছনেই পিচের অবদান নেই। বেশিরভাগ আউটই ব্যাটসম্যানের ব্যর্থতায়। পিচ স্বাভাবিক ছিল।’ আর চা-বিরতির ঠিক আগে তাঁর আউট হওয়ার ঘটনা ভারতের ইনিংস গুটিয়ে যাওয়াকে যে আরও ত্বরান্বিত করেছে, মেনে নিলেন বিহারী।

এই পিচে ৩০০ বা তার কিছু বেশি রান প্রথম ইনিংসের নিরিখে ঠিকঠাক ছিল বলে মনে করছেন মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান। কিন্তু ভুল সময়ে তাঁর আউট হয়ে যাওয়া দলের পক্ষে কাল হয়েছে। ঘটনায় দিনের খেলা শেষে দুঃখপ্রকাশও করেছেন তিনি। একইসঙ্গে কেরিয়ারের দ্বিতীয় টেস্টেই ৫ উইকেটের মালিক হওয়া কাইল জেমিসনেরও প্রশংসা করেছেন অন্ধ্রপ্রদেশের এই ব্যাটসম্যান।

কলকাতার 'গলি বয়'-এর বিশ্ব জয়ের গল্প