মুম্বই: করোনা আতঙ্কে ভুগছে সারা বিশ্ব। গোটা দেশে এই ভাইরাসের মোকাবিলায় লকডাউন চলছে। ক্রমশ বেড়েই চলেছে আক্রান্তের সংখ্যা। কিন্তু সেই তুলনায় স্বাস্থ্যকর্মীদের পিপিই ও চিকিৎসা সামগ্রীতে ঘাটতির কথা প্রায়ই খবরে উঠে আসছে।

তাই নিজেদের প্রাণের ঝুঁকি নিয়ে যাঁরা রোজ লড়ে চলেছেন তাঁদের পাশে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিলেন অভিনেত্রী বিদ্যা বালন। সে কথা একটি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে তিনি জানিয়েছেন।

বিদ্যা সেই ফেসবুক ভিডিওয় বলছেন, সেনা জওয়ানরা সীমান্তে আমাদের রক্ষা করে। আর সেভাবেই করোনা ভাইরাসের মোকাবিলা করে আমাদের সুরক্ষিত রাখছেন স্বাস্থ্যকর্মীরা। সেনাদের মতোই তাঁদেরও দরকার কিছু জিনিসের। এমতবস্থায় তাঁদের সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন পিপিই। কিন্তু তার ঘাটতি রয়ছে।

স্বাস্থ্যকর্মীরা ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছেন। এই প্রসঙ্গে তিনি বলছেন, স্বাস্থ্যকর্মীরা করোনা রোগীদের সংস্পর্শে আসছেন। আর একজন সংক্রামিত হলে তাঁর সংস্পর্শে আসা বাকিদেরও কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হচ্ছে। তাই দুর্বল হয়ে পড়ছে হাসপাতালগুলিই।

এই সব দিক মাথায় রেখেই দেশের ১০০০ জন স্বাস্থ্যকর্মীকে পিপিই দিচ্ছেন বিদ্যা। তবে তিনি যাতে আরও ১০০০ জনকে পিপিই দিতে পারেন তাঁর জন্যও সকলকে হাত মেলানোর আবেদন করেছেন। তিনি জানিয়েছেন এক একটি পিপিই-র দাম ৬৫০টাকা। সাধারণ মানুষ যাতে পিপিই অনুদান করতে পারে তার জন্য একটি ওয়েবসাইট লঞ্চ করেছেন বিদ্যা- www.tring.co.in

বিদ্যার কথায়, আপনার দেওয়া পিপিই বাঁচাতে পারে স্বাস্থ্যকর্মীর জীবন। তাই এই ওয়েবসাইটে ঢুকে পিপিই-র অর্থ অনুদানের জন্য আবেদন করেছেন তিনি।

বিদ্যা ছাড়াও আরও বেশ কয়েকজন তারকা স্বাস্থ্যকর্মীদের দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়েছেন। এই মুহূর্তে নিজেদের পরিবারের থেকে দূরত্ব বজায় রাখতে হচ্ছে চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীদেরও। কারণ তাঁরা অনেক কাছ থেকে করোনার রোগীদের চিকিৎসা করছেন এবং তাঁদের সংক্রামিত হওয়ার সম্ভাবনাও বেশি। তাই মুম্বইতে নিজের হোটেলে তাঁদের থাকার ব্যবস্থা করেছেন সোনু সুদ।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ