নয়াদিল্লি: বছর ঘুরেছে, কিন্তু পুলওয়ামার স্মৃতি এখনও কাটেন। ৪১ জন জওয়ানের মৃত্যুর কথা ভাবলে এখনও শিউরে ওঠে দেশবাসী। এবার ফের একবার সেরকমই এক বিস্ফোরণের ছক কষে জঙ্গিরা। ২০ কেজি বোমা সহ গাড়ি মিলল কাশ্মীরে। এতখানি আইইডি বিস্ফোরণ হলে কী হতে পারত, সেকথা ভেবেই চমকে উঠছে নিরাপত্তা বাহিনী। কিন্তু গোপন সূত্রে খবর পেয়ে সেই বিস্ফোরণ প্রতিহত করা সম্ভব হয়েছে।

সেই বিস্ফোরক নিষ্ক্রিয় করার যে ফুটেজ সংবাদমাধ্যমে উঠে এসেছে, তা দেখেই ভয়াবহতা আঁচ করা যাচ্ছে। ভিডিওতে দেখঅ যাচ্ছে একসঙ্গে প্রচুর ধোঁয়া বেরচ্ছে। বম্ব ডিসপোজাল স্কোয়াড সেই বোমা নিষ্ক্রিয় করেছে।

কাশ্মীর পুলিশের ডিজি দিলবাগ সিং জানিয়েছেন, রাতভর ওই গাড়িটির উপর বিশেষ নজরদারি চালানো হয়। আশেপাশের বাড়ি খালি করে দেওয়া হয়। পরে সকালে নিষ্ক্রিয় করা হয় বোমা।

বম্ব স্কোয়াডের নিরক্ষণে পরিত্যক্ত জায়গায় গাড়িটিকে বিস্ফোরণ করা হয়। বিস্ফোরণ এতটা তীব্র ছিল, বেশ কিছু ঘড়-বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে জানা যায়। অর্থাৎ জঙ্গিরা সফল হলে কী হতে পারত, তা অনুমান করা যাচ্ছে।

নাকা চেকিং চলাকালীন গাড়িটির তল্লাসি চালানো হয়। ভুয়ো নম্বর প্লেট ছিল বলে জানা গিয়েছে। গাড়িটি বাধা দেওয়ায়, চালক ব্যারিকেড ভেঙে ঢোকার চেষ্টা করে। লক্ষ্য ছিল, বিস্ফোরক ভর্তি গাড়িটে আঘাত করে বিস্ফোরণ ঘটানো। কিন্তু নিরাপত্তারক্ষীদের তত্পরতায় রুখে দেওয়া সম্ভব হয়। তবে, চালক পলাতক বলে জানা গিয়েছে।

২০১৯ সালে ফেব্রুয়ারিতে এই পুলওয়ামাতে সিআরপিএফ কনভয়ে বিস্ফোরক গাড়ি নিয়ে হামলা চালানো হয়। শহিদ হন ৪০ জওয়ান। এই হামলার ষড়যন্ত্র করে পাক মদতপুষ্ট জইশ-ই-মহম্মদ। এরপরও কূটনৈতিক লড়াই শুরু হয়ে যায় ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে।

কলকাতার 'গলি বয়'-এর বিশ্ব জয়ের গল্প