কলকাতা২৪x৭: জিতে গেল ফুটবল, জিতে গেলেন সমর্থকেরা। রবিবার রাতে ফুটবল বিশ্বে যে কালবৈশাখী ঝড় উঠেছিল, ৪৮ ঘন্টা কাটতে না কাটতেই খেই হারালো তা। প্রিমিয়র লিগের ৬টি দল এক এক করে ‘বিদ্রোহী লিগে’র ভাবনা থেকে সরে আসায় হুড়মুড়িয়ে ভেঙে পড়ল জুভেন্তাস প্রেসিডেন্ট আন্দ্রেয়া আগ্নেলি এবং রিয়াল মাদ্রিদ প্রেসিডেন্ট ফ্লোরেন্তিনো পেরেজের মস্তিষ্কপ্রসূত ইউরোপিয়ান সুপার লিগের ভাবনা। উয়েফা এবং ফিফার বহিষ্কারের হুমকির মুখে অকুতোভয় পেরেজের হার না মানা মনোভাব ব্যুমেরাং হয়ে ফিরল মঙ্গলের রাতে।

উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ থেকে বেরিয়ে এসে বিদ্রোহী লিগের ভাবনায় প্রাথমিকভাবে যে ১২টি ক্লাব নাম লিখিয়েছিল, মঙ্গলবার তার মধ্যে ইংল্যান্ডের ৬টি ক্লাবই সেই ভাবনা থেকে পিছু হটার প্রস্তুতি শুরু করে দিল। সোমবার এবং মঙ্গলবার দিনভর সুপার লিগের ভাবনাকে ধিক্কার জানিয়ে সমর্থকদের প্রবল রোষ আছড়ে পড়েছিল ইংল্যান্ডের বিভিন্ন প্রান্তে। কেবল সমর্থকেরাই নন, তলায় তলায় এমন ভাবনার বিরোধীতায় সুর চড়াচ্ছিলেন কোচ থেকে ফুটবলাররাও।

সূত্রের খবর প্রিমিয়র লিগ ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন লিভারপুলের অধিনায়ক জর্ডান হেন্ডারসন মঙ্গলবার এক ভার্চুয়াল মিটিং’য়ের আয়োজন করেছিলেন ইংল্যান্ডের বাকি পাঁচ ক্লাবের অধিনায়কের সঙ্গে, যারা প্রাথমিকভাবে সুপার লিগের শরিক হয়েছিল। সেই মিটিং’য়ের পর লিভারপুল ফুটবলারদের মাইক্রোব্লগিং সাইট ভরে ওঠে এক বিশেষ বার্তায়। সমর্থকদের আবেগকে সর্বাগ্রে প্রাধান্য দিয়ে অধিনায়ক জর্ডান হেন্ডারসন সহ ভার্জিল ভ্যান ডাইক, অ্যান্ডি রবার্টসন, জেমস মিলনাররা টুইট বার্তায় লেখেন, ‘সুপার লিগ আমাদের পছন্দ নয়, আমরা চাই না এটা বাস্তবে হোক। আমরা আজ যেখানে দাঁড়িয়ে সেটা আমাদের সম্মিলিত প্রচেষ্টায়। এই ফুটবল ক্লাব এবং সমর্থকদের প্রতি আমরা চরম এবং নিঃশর্তভাবে দায়বদ্ধ।’

এরপরেই একে একে শুরু হয় সুপার লিগ থেকে বেরিয়ে আসার পালা। সর্বপ্রথম এক বিবৃতিতে ম্যাঞ্চেস্টার সিটি সুপার লিগের ভাবনা থেকে সরে আসার কথা জানিয়ে লেখে, ‘ম্যাঞ্চেস্টার সিটি ফুটবল ক্লাব নিশ্চিত করছে যে ইউরোপিয়ান সুপার লিগের প্রস্তাবিত ভাবনা থেকে নিজেদের সরিয়ে নেওয়ার কাজ শুরু করেছে তারা।’ এরপর লিভারপুল জানায়, ‘ইউরোপিয়ান সুপার লিগের প্রস্তাবিত ভাবনায় তারা আর নেই।’ ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেড জানায়, ‘আমরা আমাদের সমর্থক, যুক্তরাজ্য সরকার এবং স্টকহোল্ডারদের মতামতকে গুরুত্ব দিয়েছি। আমরা অন্যান্যদের সঙ্গে একই ছাদের নীচে থাকতে চাই এবং ফুটবলের জন্য যে সকল দীর্ঘমেয়াদী প্রতিবন্ধকতা রয়েছে সেগুলোর নিষ্পত্তি করতে চাই।’

আর্সেনাল এবং টটেনহ্যাম এক বিবৃতিতে উয়েফার কাছে ক্ষমা চেয়ে নিয়েছে গোটা ঘটনার জন্য। ইউরোপিয়ান ফুটবলের গভর্নিং বডিও সাদরে ফের কাছে টেনে নিয়েছে ক্লাবগুলোকে। সোমবার প্রিমিয়র লিগে লিডসের বিরুদ্ধে ম্যাচ শুরুর আগে সুপার লিগ ঘিরে লিভারপুল সমর্থকদের যে রোষ শুরু হয়েছিল, মঙ্গলবার ব্রিটনের বিরুদ্ধে মাঠে নামার আগে চেলসি সমর্থকদের সেই বিক্ষোভ মারাত্মক আকার নেয়। শেষ অবধি সেই রোষের কাছে সুপার লিগের ভাবনা মাথা নোয়ানোয় খুশি প্রাক্তন তারকারা।

প্রাক্তন ম্যান ইউ তারকা গ্যারি নেভিল সুপার লিগের ভাবনা হোঁচট খাওয়ায় বিয়ার হাতে সেলিব্রেশনের ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেছেন। লিভারপুল প্রাক্তনী জেমস ক্যারাঘার যেমন একটি এপিটাফের ছবি মজার ছলে পোস্ট করেছেন। সেখানে লেখা, সুপার লিগের জন্ম – ১৮ এপ্রিল, ২০২১ এবং মৃত্যু – ২০ এপ্রিল, ২০২১।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.