কলকাতা: রাজভবনের চিঠি ‘অপমানকর’। এই অভিযোগে বুধবার আচার্য জগদীপ ধনখড়ের ডাকা ভার্চুয়াল বৈঠক এড়ালেন রাজ্যের ২০টি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য। নোভেল করোনাভাইরাসের সংক্রমণের জেরে রাজ্যের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের নানাবিধি সমস্যা নিয়ে বুধবার উপাচার্যদের সঙ্গে কথা বলতে চেয়েছিলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়।

রাজভবনের তরফে বুধবারের ভার্চুয়াল বৈঠকে যোগ দিতে বলে উপাচার্যদের দু’টি চিঠি পাঠানো হয়েছিল। তবে উপাচার্যদের দাবি, রাজভবনের পাঠানো চিঠি ‘অপমানকর’। সেই কারণেই রাজ্যপালের সঙ্গে ভার্চুয়াল বৈঠক এড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তাঁরা। পড়ুয়াদের সমস্যা নিয়ে আলোচনার জন্য ৭ জুলাই উপাচার্যদের চিঠি পাঠিয়েছিলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়।

উপাচার্যদের ভার্চুয়াল ওই বৈঠকে যোগ দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। তবে উপাচার্যদের দাবি, নিয়ম অনুযায়ী উচ্চশিক্ষা দফতরের মাধ্যমেই তাঁদের কাছে চিঠি যাওয়ার কথা। পরে ফের দু’টি চিঠি পাঠানো হয় উপাচার্যদের কাছে।

সেই চিঠিতে ভার্চুয়াল বৈঠকে যোগ দেওয়ার কথা জানিয়ে পরোক্ষে উপাচার্যদের ‘ভীতি’ প্রদর্শনের চেষ্টা হয়েছে বলে অভিযোগ উপাচার্যদের। সেই কারণেই বুধবার রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের ডাকা ভার্চুয়াল সভায় উপস্থিত হননি উপাচার্যরা।

ইতিমধ্যেই রাজভবনের বিরুদ্ধে উষ্মা প্রকাস করে একটি বিবৃতি দিয়েছে উপাচার্য পরিষদ। সেই বিবৃতিতে বলা হয়েছে, আচার্যের কার্যালয় থেকে উপাচার্যদের পাঠানো চিঠি ‘অপমানকর’। সাম্প্রতিক পরিস্থিতিতে আচার্যের কার্যালয়ের এমন বার্তা দুর্ভাগ্যজনক বলেও মনে করছে উপাচার্য পরিষদ।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ