স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: জন্মাষ্টমীতেই বিশ্ব হিন্দু পরিষদের জন্মগ্রহণ। সেই কারণেই, শুক্রবার সারা রাজ্য জুড়ে বিশ্ব হিন্দু পরিষদের জন্মাষ্টমীর শোভাযাত্রা বেরিয়েছে।

সব থেকে প্রাণোচ্ছল শোভা যাত্রা হয়েছে উত্তরবঙ্গের অলিপুরদুয়ারে। হিন্দু জাগরণ মঞ্চ সেখানে শোভাযাত্রা করেছে। এছাড়া, কলকাতার শ্যামবাজার বিশ্ব হিন্দু পরিষদের কার্যালয় থেকে জন্মাষ্টমী উপলক্ষ্যে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বেরিয়েছে। বর্ধমানের সিউড়িতে জন্মাষ্টমী শোভাযাত্রতে কয়েক হাজার মানুষের সমাগম হয়েছে।

মেদিনীপুর শহরেও বিশাল বড় জন্মাষ্টমী উৎসব পালন করেছে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ। কলকাতায় এবার পরিষদের তরফ থেকে বিশাল শোভাযাত্রা শহরের বিভিন্ন দিকে দেখা গিয়েছে। টালিগঞ্জ এলাকায় দীনেশনগর স্কুল থেকে, রাজপুর-সোনারপুর এলাকায়, বরানগর ৪৩ নম্বর বাসস্ট্যান্ড বনহুগলি থেকে, বিধাননগর চিংড়িহাটা, গার্ডেনরিচ পাহাড়পুর থেকে, পার্কসার্কাস লোহাপুল থেকে বিশ্ব হিন্দু পরিষদের মিছিল বেরিয়েছে।

উত্তর কলকাতায় জন্মাষ্টমী শোভাযাত্রা হয়েছে সাড়ম্বরে। ৩৩ ভূপেন বোস এভিনিউ অর্থাৎ শ্যাম পার্ক তথা মনিন্দ্র কলেজের নিকট শোভাযাত্রা গিয়েছে। বিশ্ব হিন্দু পরিষদ কার্যালয় হইতে শুভারম্ভ হইয়া শ্যামবাজার পাঁচ মাথার মোড় হয়ে হাতিবাগান হয়ে শোভাবাজার, বি কে পাল, কুমারটুলি, বাগবাজার এবং রাজ বল্লভ পাড়া হয়ে আবার পরিষদের কার্যালয়ের সামনে শেষ হয়েছে।

কিন্তু, অলিপুরদুয়ারের ফালাকাটা, দুর্গাবাড়ি, কামাখ্যা গুড়ির জমজমাট শোভাযাত্রা ছিল রঙিন। সারা রাজ্যে সাড়ে পাঁচশো মিছিল বেরোবে, তা আগেই ঠিক ছিল। প্রায় ১৫০০ জায়গায় পালিত হওয়ার উৎসব। গান, কবিতা, আঁকা এবং যেমন খুশি সাজ – প্রতিযোগিতা নিয়ে রঙবেরঙের সেই মিছিলে হাজির থাকবে আট থেকে আশি, দাবি করেছে পরিষদ। শনি ও রবিবার ও উৎসব চলবে।

এই বছর, পরিষদের তরফে সর্বভারতীয় সহ সম্পাদক শচীন্দ্র নাথ সিনহা এবং সর্বভারতীয় সাংগঠনিক সম্পাদক বিনায়ক রাও দেশপাণ্ডে রাজ্যে উপস্থিত থাকবে। সংগঠন বিস্তারের কাজকর্ম দেখাশোনা করবেন। তিনটি বড় সভা করবে ওই নেতারা। দুর্গাপুরে হবে মাতৃশক্তি দুর্গাবাহিনীর সভা, নৈহাটিতে হবে ধর্ম সভা এবং হাওড়ার পাঁচলাতেও সভা হবে।

মিছিলগুলি চিত্তাকর্ষক করে তোলার জন্য , ‘কৃষ্ণ সাজ প্রতিযোগিতার’ আয়োজন করা হয়েছে। ছোট ছোট ছেলে মেয়েরা প্রতিযোগীতায় অংশ নেবে। রঙিন জন্মাষ্টমী পালনের পথে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ।