দেবযানী সরকার, কলকাতা: ১৯ জানুয়ারি তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ডাকা ব্রিগেডের মঞ্চে শুধুমাত্রই লোকসভার বিরোধী দলনেতাই নয়, থাকতে পারেন রাজ্যের বিরোধী দলনেতাও৷ মল্লিকার্জ্জুন খারগের সঙ্গে আব্দুল মান্নানের মঞ্চের উপর উপস্থিতি লোকসভা ভোটের আগে প্রদেশ কংগ্রেস নেতৃত্বের উপর চাপের বোঝা বাড়াতে চলেছে৷

মঙ্গলবার নবান্নে তৃণমূল সুপ্রিমো মল্লিকার্জ্জুন খারগের নাম ঘোষণা করার পরই প্রদেশ কংগ্রেস সূত্রে জানা গিয়েছে, মঞ্চে থাকতে পারেন আব্দুল মান্নানও৷ হাইকম্যান্ডের বিশেষ নির্দেশে বর্ষীয়ান এই কংগ্রেস নেতাকে ‘ইচ্ছা না থাকা সত্ত্বেও’ মঞ্চে মমতাকে সঙ্গ দিতে হবে৷এদিকে, প্রদেশ কংগ্রেসে গৃহযুদ্ধের পরিস্থিতি৷ অনেকে লজ্জায় মুখ ঢাকছেন৷ অনেক সিনিয়র নেতা ভাবতে শুরু করেছেন সিপিএমের রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্রকে কী জবাব দেবেন৷

নির্বাচনে তৃণমূলের হাত না ধরার জন্য প্রথম থেকেই রাহুল গান্ধীর কাছে দরবার করেছেন আব্দুল মান্নান৷ জানা গিয়েছিল ব্রিগেডে অপেক্ষাকৃত কম গুরুত্বপূর্ণ নেতাকে পাঠানোর আর্জি জানিয়েছিলেন তিনি৷ কিন্তু আদৌও তাঁর কথা শোনা হল না৷ বরং উল্টে দিল্লিই তাঁকে সেই মঞ্চে যাওয়ার নির্দেশ দিয়ে তাঁর অস্বস্তি বাড়াল বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল৷ তবে এব্যাপারে আব্দুল মান্নানের বলেন, “আমার কাছে এরকম কোনও নির্দেশ আসেনি৷”

শেষপর্যন্ত মান্নান সাহেব হাইকম্যান্ডের নির্দেশ মানবেন নাকি দিল্লিকে বুঝিয়ে-সুঝিয়ে এড়িয়ে যাবেন সেটা ১৯ জানুয়ারিই স্পষ্ট হবে৷